ডেস্ক: সংবাদ মাধ্যমের ক্যামেরা দেখলেই আলপটকা মন্তব্য করতে না করে দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। কিন্তু বিজেপি নেতাদের অবিবেচিত মন্তব্য বন্ধ হওয়ার কোনও নাম গন্ধ নেই। কাঠুয়া গণধর্ষণ কাণ্ড নিয়ে এবার মুখ খুলে বিতর্কের আগুন জ্বালালেন জম্মু-কাশ্মীরের উপ-মুখ্যমন্ত্রী কবিন্দর গুপ্তা। ক্ষমতার আস্ফালন এতটাই যে, শপথ নেওয়ার এক ঘণ্টা সময় কাটতে না কাটতেই কাঠুয়া কাণ্ডকে ‘ছোট্ট ঘটনা’ বলে আখ্যা দিলেন তিনি। এই মন্তব্য করে বিজেপি সহ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে নিশানায় নেওয়ার জন্য বিরোধীদের রাস্তা আরও চওড়া করে দিলেন তিনি।

কবিন্দর গুপ্তার এই মন্তব্যে খুব স্বাভাবিকভাবেই নতুন করে মুখ পুড়েছে বিজেপির। একেই কাঠুয়া এবং উন্নাও নিয়ে কাঠগড়ায় রয়েছে বিজেপি। উপরি পাওনা হিসাবে একের পর এক ‘মহান’ উক্তির ফুলঝুরি ছোটাচ্ছেন ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেব। এতে প্রধানমন্ত্রী মোদী এতটাই ক্ষুব্ধ হয়েছেন যে আগামীকালই তাঁকে দিল্লি তলব করেছেন। কিন্তু এতকিছু করেও কোথায় কী? বিজেপি নেতারা যেই তিমিরে ছিলেন সেই তিমিরেই রয়ে গিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রীর কর্মকাণ্ডে জল ঢালার জন্য এরাই যেন যথেষ্ট।

গতকাল শপথ নেওয়ার পর সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলতে গিয়ে তিনি বলেন, ”কাঠুয়া একটা ছোট্ট ঘটনা। এরম ঘটনা ফের ভবিষ্যতে যাতে না ঘটে সেদিকে নজর রাখা হবে।” এখানেই দেশবাসীর প্রশ্ন, একদিকে যখন শিশুকন্যা ধর্ষণ ক্রমশ একটি মহামারীর আকার নিচ্ছে, তখন এই ধরণের অবিবেচিত মন্তব্য কীভাবে করতে পারেন একটি রাজ্যের উপ-মুখ্যমন্ত্রী?

অন্যদিকে, উপ-মুখ্যমন্ত্রীর এই মন্তব্যকে হাতিয়ার করে ইতিমধ্যেই আসরে নেমে পড়েছেন বিরোধী দলনেতা ওমর আবদুল্লা। মুখ্যমন্ত্রী মেহেবুবা মুফতিকে উদ্দেশ্য করে টুইটারে তিনি লেখেন, ‘একজন উপ-মুখ্যমন্ত্রী যখন মন্তব্য করছেন যে এটি একটি ছোট্ট ঘটনা। এতে সংবাদ মাধ্যমের এত নজর দেওয়া উচিত না। তখন কীভাবে ন্যায় আশা করা যেতে পারে?’

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here