JNU আমাকে রাজনীতি বুঝিয়েছে, দারিদ্র্য চিনিয়েছে কলকাতা! অকপট নোবেলজয়ী বাঙালি

0
kolkata bengali news

মহানগর ওয়েবডেস্ক: অমর্ত্য সেনের পরে দ্বিতীয় বাঙালি হিসেবে অর্থনীতিতে নোবেল পেয়েছেন অভিজিৎ বিনায়ক বন্দ্যোপাধ্যায়। একই সঙ্গে নোবেল সম্মান পেয়েছেন তাঁর স্ত্রী এস্থার ডাফলোও। নোবেল পাওয়ার পরেই কলকাতা, রাজনীতি নিয়ে মুখ খুলেছেন তিনি। এক সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমকে একান্ত সাক্ষাৎকার দিয়ে অভিজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন, জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয় তাঁকে রাজনীতি বুঝিয়েছে, আর কলকাতা দারিদ্র্য চিনিয়েছে।

নোবেলজয়ী বাঙালির কথায়, ‘জেএনইউ আমাকে রাজনীতি বুঝিয়েছে। তার মানে এই নয় আমি বাকিদের মত ইউনিয়ন বা রাজনৈতিক সংগঠনে যুক্ত হয়েছি। কিন্তু ওটা আমাকে রাজনীতি কতটা গুরুত্বপূর্ণ সেটা বুঝতে সাহায্য করেছে।’ একইসঙ্গে তিনি বলেন, ‘কলকাতার লাল রাজনীতি সম্পর্কে আমার ধারণা ছিল, তবে বাকি দেশের রাজনীতি নিয়ে আমি ওয়াকিবহাল ছিলাম না। পরবর্তী সময়ে আমি গান্ধীদের সঙ্গে পরিচিত হল, আরএসএস সম্পর্কে জানলাম। জেএনইউ ভারতীয় রাজনীতি সম্পর্কে সঠিক জ্ঞান দিয়েছিল আমাকে।’

পাশাপাশি নিজের জন্মস্থান কলকাতা সম্পর্কে অভিজিৎ বলেন, ‘আমরা মধ্যবিত্ত পরিবার ছিলাম। কিন্তু আমার দাদু কলকাতার সবচেয়ে বড় বস্তির পাশেই বড় বাড়ি তৈরি করেছিলেন। বস্তির ছেলেমেয়েদের সঙ্গে খেলেই বড় হয়েছি আমি। তখনই আমি দরিদ্র সম্পর্কে বুঝতে পারি। দারিদ্র্য কী জিনিস তা আমাকে বোঝায় কলকাতা।’

প্রসঙ্গত, এই মুহূর্তে ফোর্ড ফাউন্ডেশনের আন্তর্জাতিক অধ্যাপক হিসেবে এমআইটি-তে কর্মরত অভিজিৎ বিনায়ক। ২০১৩ সালে অভিজিৎ এবং তাঁর স্ত্রী এস্থার ডাফলো যুগ্মভাবে ‘আব্দুল লতিফ জামিল পভার্টি অ্যাকশান ল্যাব’ গড়ে তুলেছিলেন বিশ্বের দারিদ্র নিয়ে গবেষণার জন্যে। তাঁদের পরীক্ষামূলক গবেষণাকেই সম্মান জানাচ্ছে নোবেল কমিটি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here