ডেস্ক: দীর্ঘদিন পর লিগ জয়ের খুব কাছে এসেও পদস্খলন, হতাশ দলের খেলোয়াড়, কর্মকর্তা থেকে সাধারণ দর্শক। তাও খাতায় কলমে এখনও ক্ষীণ একটা সম্ভাবনা রয়েছে। কিন্তু তার আগে আরেকটা বড় ধাক্কা খেল কোয়েস ইস্টবেঙ্গল। বিপক্ষ খেলোয়াড়কে থুতু ছেটানোর অভিযোগে নির্বাসিত করল অল ইন্ডিয়া ফুটবল ফেডারেশন।

২৫ ফেব্রুয়ারির আইজল ম্যাচটা ইস্টবেঙ্গলের কাছে যেন একটা দুঃস্বপ্ন। একদিকে যেমন ড্র করে খেতাবি লড়াই থেকে প্রায় ছিটকে গিয়েছে ইস্টবেঙ্গল, তেমনই ঝামেলায় জড়িয়ে নির্বাসিত দলের সেরা গোল স্কোরার। ফলে আগামী তিন গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে দলের সর্বোচ্চ গোলদাতার সার্ভিস নাও পেতে পারে লাল-হলুদ।

ঘটনাটি ঘটে আইজল ম্যাচের দ্বিতীয়ার্ধে। তখন ম্যাচ জেতার মরিয়া প্রচেষ্টা চালাচ্ছে কলকাতার অন্যতম প্রধান। সেই সময়ে হঠাতই আইজলের করিমের সঙ্গে ঝামেলায় জড়ান জবি। করিমকে নাকি থুতুও ছেটান লাল-হলুদ স্ট্রাইকার। এই ঘটনাটি নজর এড়ায় রেফারির। এর কিছু পরেই জবিকে লাথি মারেন করিম। রেফারি তাঁকে লাল কার্ড দেখান।

এখানেই আপত্তি তোলে আইজল। তাদের দাবি কেন জবিকে কিছু বলা হল না। সেই নিয়ে ফেডারেশনে অভিযোগ জানায় তারা। একদিনের মধ্যেই ফেডারেশনের শৃঙ্খলারক্ষা কমিটি অন্তর্বর্তীকালীন নির্বাসিত করে জবি ও করিমকে। ফেডারেশনের শৃঙ্খলারক্ষা কমিটির চেয়ারম্যান জানান, ‘ প্রাথমিকভাবে জবি ও করিম, উভয়কেই দোষী মনে হয়েছে। আগামী ৩ মার্চ ফেডারেশনের শৃঙ্খলারক্ষা কমিটির বৈঠক হবে। ততদিন এই দুই ফুটবলারকে নির্বাসিত করা হল।’

মঙ্গলবার রাতেই এই সম্পর্কিত নির্দেশনামা লাল-হলুদের কাছে পৌঁছে গিয়েছে বলে খবর। ফলে আগামী কাশ্মীর ম্যাচে জবি খেলবেন না। যদিও তাঁকে প্রাথমিক দলে রেখেছে ক্লাব। অন্যদিকে, জবি যদি দোষী প্রমাণিত হন তাহলে তাঁকে পাঁচ ম্যাচ পর্যন্ত সাসপেন্ড করা হতে পারে। সেক্ষেত্রে সুপার কাপের শুরুতেও তাঁকে পাবে না ইস্টবেঙ্গল।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here