kolkata bengali news

Highlights

  • নৈরাজ্যবাদী আর জঙ্গির মধ্যে কোনও পার্থ্যক্য নেই
  • বিজেপির দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী হচ্ছেন জন সিনা
  • দিল্লির বিধানসভা নির্বাচনে যদি বিজেপি ভোটে জেতে তাহলে মুখ্যমন্ত্রী কে হবে?

মহানগর ওয়েবডেস্ক: শিয়রে দিল্লির বিধানসভা নির্বাচন। হাতে গনা আর কয়েকদিন বাকি, কিন্তু এখনও পর্যন্ত দিল্লির মুখ্যমন্ত্রীর পদে কাকে মুখ করে ভোট যুদ্ধে নামবে বিজেপি। সেই সিদ্ধান্তে আসতে পারেনি গেরুয়া শিবির। দিল্লির নির্বাচনের দিন ঘোষণা হওয়ার পর থেকেই শাসকদল আম আদমি পার্টি থেকে শুরু করে কংগ্রেস কিংবা বিজেপি ভোটযুদ্ধে নেমে পড়েছেন। রাজনীতির ময়দানে দিল্লির কুর্শি দখলে এক ইঞ্চিও জমি ছাড়তে নারাজ কোনও শিবির। কিন্তু অরবিন্দ কেজরিওয়ালের বারবার অভিযোগ বিজেপির মুখ্যমন্ত্রী কে? অর্থাৎ দিল্লির বিধানসভা নির্বাচনে যদি বিজেপি ভোটে জেতে তাহলে মুখ্যমন্ত্রী কে হবে? এই প্রশ্ন দিল্লির বিজেপি নেতৃত্বকে বারবার করেছে আম আদমি পার্টি।

যদিও বিজেপি সেই বিতর্কে না গিয়ে নিজেদের প্রচার নিয়েই ব্যস্ত। আর তাই বিজেপির কিছুটা সুবিধা করে এদিন আপ তাঁদের মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী নির্বাচন করেছেন। কার্যত বিজেপিকে মজা করে এদিন আপ ট্যুইট করে জানিয়েছে, ”অবশেষে বিজেপির দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থীকে খুঁজে পেলাম। যার নাম জন সিনা। কারণ আপনারা তাঁকে দেখতেই পাবেন না।”


বিজেপিকে কার্যত চাঁচাছোলা ভাষায় আক্রমণ না করে মিষ্টিভাবেই মজা করেছে অরবিন্দ কেজরিওয়ালের দল। নির্বাচন কমিশনের দিল্লির নির্বাচনের ভোটের দিন ঘোষণা হওয়ায় আপ, কংগ্রেস কিংবা বিজেপি প্রত্যেকটি দলই আদাজল খেয়ে মাঠে নেমেছেন। একদিকে যেমন বিজেপির ভোটে জেতার হাতিয়ার হল শাহিনবাগ ও সিএএ অপরদিকেই তেমন স্বাস্থ্য, শিক্ষা, জনপরিষেবার তাস খেলে ভোটে জিততে মরিয়া কেজরিওয়াল। তেমনই কংগ্রেস শীলা দীক্ষিতের দিল্লির কথা স্মরণ করিয়ে দিয়ে ভোটযুদ্ধে নেমেছে। তবে রাজনৈতিক মহলের অনুমান লড়াইটা মূলত বিজেপি ও আপের মধ্যেই। তাই কখনও আপ নেতৃত্ব বিজেপিকে নিয়ে মশকরা করছে আবার কখনও বিজেপি কেজরিওয়ালের দিকে একের পর এক অভিযোগের তীর ছুঁড়ছেন। যার ফলস্বরূপ এদিন আপের তরফ থেকে বিজেপির মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে জন সিনার নাম ঘোষণা করা হয়েছে। যার পুরোটাই কৌতুকের মাধ্যমেই আক্রমণ বলাই যায়।

গতকাল দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী কেজরিওয়ালকে কটাক্ষ করে কেন্দ্রীয়মন্ত্রী প্রকাশ জাভেড়েকর। গতকাল তিনি জানান, ”কেজরিওয়াল ভালো মানুষের মুখোশ পড়ে রয়েছেন, কিন্তু আদপে তিনি একজন জঙ্গি। যার প্রমাণ রয়েছে আমাদের কাছেই। কেজরিওয়াল নিজেকে নৈরাজ্যবাদী বলে দাবি করেন বারবার, কিন্তু আমাদের মনে হয় নৈরাজ্যবাদী আর জঙ্গির মধ্যে কোনও পার্থ্যক্য নেই।”

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here