ডেস্ক: গুরুগ্রামের এক বিচারকের স্ত্রী ও ছেলেকে প্রকাশ্যে গুলি মারার ঘটনা গতকালই উঠে এসেছিল শিরোনামে। গুরুতর আহত অবস্থায় দুজনকেই হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। কিন্তু বিচারকের স্ত্রী ঋতু মধ্যরাতে মারা যান। ছেলে ধ্রুব এখনও মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছে। এরই মধ্যে জানা গিয়েছে, এই ঘটনায় মূল অভিযুক্ত দেহরক্ষী মহিপালকে গ্রেফতার করে নিয়েছে পুলিশ।

ইতিমধ্যেই ঘটনার তদন্তের জন্য কমিটি গঠন করা হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। ডিএসপির নেতৃত্বে ২ এসপি ও ৪ ইন্সপেক্টরকে নিয়ে এই কমিটি গঠন করা হয়েছে। বিচারক শ্রীকান্তের ছেলে ধ্রুবের মাথা, গলা ও কাঁধে তিনটি গুলি মেরেছিল আততায়ী মহিপাল।

স্থানীয় সূত্রে খবর, মার্কেটে শপিংয়ে এসেছিলেন বিচারক শ্রীকান্ত শর্মার স্ত্রী ও ছেলে। সঙ্গে ছিল মহিপাল সিং নামে ওই দেহরক্ষী। মহিপাল প্রথমে বিচারকের স্ত্রীকে গুলি করে। তারপর ধ্রুবকে। এরপর তাকে গাড়িতে টেনে তোলার চেষ্টা করে। কিন্তু পারেনি। পরে সে তাঁদের রাস্তায় ফেলে ওই গাড়ি নিয়েই চলে যায়। ঘটনাস্থলে উপস্থিত পথচারীরা সেই ভিডিও তুলে ছেড়ে দেয় সোশ্যাল নেটওয়ার্কে। এরপরই পুরো ঘটনার কথা ছড়িয়ে পড়ে সংবাদমাধ্যমে।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here