নিজস্ব প্রতিবেদক, উত্তর ২৪ পরগণা: একজন উত্তর ২৪ পরগনার তৃণমূল জেলাসভাপতি, অন্যজন উত্তর ২৪ পরগনার ব্যারাকপুর কেন্দ্রের বিজেপি সাংসদ। এই দুইয়ের ঠোকাঠুকি বেশ ভালোই। একে অপেরকে কুমন্তব্য করতেও পিছুপা হন না কেউই। সেই ধারা অব্যাহত রেখে এবার তৃণমূল জেলা সভাপতি জ্যোতিপ্রিয় মল্লিককে একহাত নিয়ে নিলেন বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিং। সরাসরি তাঁর বিরুদ্ধে মহিলা ঘটিত অপরাধের অভিযোগ করলেন তিনি।

মঙ্গলবার বারাসাত বিশেষ আদালতে এসে সংবাদমাধ্যমের সামনে এক সাক্ষাৎকার দিতে গিয়ে জ্যোতিপ্রিয় মল্লিককে নিয়ে মন্তব্য করেন তিনি। বলেন, ‘একটি ছেলে জ্যতিপ্রিয়র বিরুদ্ধে হাইকোর্টে মামলা করেছে যে তার বউকে নিয়ে জ্যোতিপ্রিয় পালিয়ে গিয়েছে ওই মামলা করার পরই ওর মাথাটা খারাপ হয়ে গিয়েছে।’ এরপরই তিনি বলেন, ছেলেটির নাম আমি জানি না। কিন্তু ছেলেটি মাড়োয়ারি। তাঁর তার বউকে নিয়ে জ্যোতিপ্রিয় নিজের কাছে রেখে দিয়েছে। বার বার বলা সত্ত্বেও ওই মহিলাকে ফেরানো হয়নি। এর জেরেই ওই ছেলেটি মামলা দায়ের করেছে গোটা ঘটনায় বেশ চাপে রয়েছেন উনি ওই কারণেই মাথাটা খারাপ হয়ে গিয়েছে।’ সম্প্রতি, একটি ইস্যুতে অর্জুন সিংকে কুমন্তব্য করেছিলেন জ্যোতিপ্রিয় তারই পাল্টা দিতে গিয়ে এদিন জ্যোতিপ্রিয় মল্লিককে একহাত নেন তিনি।

এর পাশাপাশি অর্জুনের দাবি, তাঁকে খুন করার জন্যয় উঠেপড়ে লেগেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর কথায়, ‘মুখ্যমন্ত্রী মনোজ ভার্মা, অজয় ঠাকুরকে দায়িত্ব দিয়েছেন আমাকে খুন করার। শুধু আমি নয়, মুকুল রায়কেও খুন করার চক্রান্ত চলছে। মমতা ব্যানার্জী বাংলার মুখ্যমন্ত্রী নন! উনি তৃনমূলের মুখ্যমন্ত্রী’। কোন‌ও এক সময় আমার বিরুদ্ধে পুলিশকে দিয়ে রেড করিয়ে কোনও খুনের মামলায় ফাঁসিয়ে দেওয়া হতে পারে বলে সন্দেহ প্রকাশ করেছেন তিনি। যেটা বিমল গুরুঙের ক্ষেত্রেও হয়েছিল মনে করছেন বিজেপি সাংসদ। একইসঙ্গে সোমেন মিত্রের মতো একই ছকে বিস্ফোরক অর্জুন সিংহ জানালেন, ‘তৃণমূলের হাতেই খুন হয়ে যেতে পারেন রাজীব কুমার। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায় ও অভিষেক বন্দোপাধ্যায়ের নাম তুলে আনতে পারেন রাজীব। রাজীব কুমার মুখ খুললে পিসি ভাইপোর কপালে বিপদ। কারণ, তাঁর কাছে অনেক তথ্য আছে। তাই খুন হতে পারেন রাজীব কুমার। সেইসঙ্গে যাদবপুর ঘটনায় বাবুল সুপ্রিয় ও রাজ্যপালের ভূমিকার প্রশংসাও করেন অর্জুন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here