bengali news

মহানগর ওয়েবডেস্ক: একসঙ্গে ২২ জনের পদত্যাগ। মধ্যপ্রদেশের কংগ্রেস সরকার একেবারে খাদের কিনারায়। কী করবেন আর কী করবেন না তা এখনই ভেবে উঠতে পারছেন না কমল নাথ এবং তাঁর সরকারও। কারণ শত্রু যে এবার ঘরের লোকই! রাজ্যের সরকারের টলমল অবস্থার জন্য নাকি দায়ী খোদ জ্যোতিরাদিত্যা সিন্ধিয়া। তিনিই নাকি কংগ্রেসের ১৭ জন বিধায়ককে বেঙ্গালুরুতে উড়িয়ে নিয়ে গিয়েছেন। কোনও বিধায়কের সঙ্গেই যোগাযোগ করতে পারেনি কমল নাথের সরকার। এই পরিস্থিতিতে ড্যামেজ কন্ট্রোলে নামলেন কংগ্রেস নেতা দিগ্বিজয় সিং। বললেন, সিন্ধিয়ার সোয়াইন ফ্লু হয়েছে।

বর্ষীয়ান কংগ্রেস নেতার কথায়, সিন্ধিয়ার সঙ্গে যোগাযোগ করা যাচ্ছে না, কারণ তাঁর সোয়াইন ফ্লু হয়েছে। তবে তাঁর সঙ্গে যোগাযোগের পূর্ণ চেষ্টা চলছে বলেই দাবি করেছেন তিনি। তবে দলীয় সূত্রে খবর, এখন বেঙ্গালুরুর কোনও এক হোটেলে রয়েছে সিন্ধিয়া এবং তিনি বিজেপির সঙ্গে সমঝোতাও করতে পারেন। এই মুহূর্তে সরাসরি বিজেপির দিকে তোপ দেগে কংগ্রেসের তরফে জানান হয়েছে, মাফিয়াদের সাহায্য নিচ্ছে গেরুয়ারা, এইভাবে মধ্যপ্রদেশের সরকার ফেলে দিতে উদ্যত হয়েছে তারা। অন্যদিকে, কমল নাথ জানিয়েছেন, সকলের ইস্তফা গ্রহণ করা হয়েছে। এদিন ফের নতুন করে মন্ত্রিসভা গঠন করা হবে।

মধ্যপ্রদেশের কংগ্রেস সরকারের অভিযোগ ছিল বিজেপি সরকার ভাঙতে চেয়ে বিধায়কদের হোটেলে বন্দি করে রেখেছে। সেই নাটকের অবসান হতে না হতেই এবার নতুন নাটকের আসর জমে উঠল কমল রাজ্যে। মুখ্যমন্ত্রী কমলের সরকারকে একেবারে খাদের কিনারায় পাঠিয়ে দেওয়া জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া বেশ কিছু সময় ধরেই দলের বিরুদ্ধে গর্জে উঠছিলেন। সেই প্রেক্ষিতে আন্দাজ করা হচ্ছে তিনি হয়তো এবারই বিজেপিতে যেতে পারেন। তার আগে মধ্যপ্রদেশের সরকার ভেঙে ‘সবক’ শেখাতে চাইছেন কমল নাথদের। কারণ জানা গিয়েছে, যে বিধায়করা আত্মগোপন করে রয়েছে, তাঁরা সকলেই সিন্ধিয়া শিবিরের লোক। সেখানে কয়েকজন মন্ত্রীও রয়েছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here