ডেস্ক: নেপাল তিব্বতে ভারি বৃষ্টির জেরে ধস নেমেছে কৈলাস-মানস সরোবরের রাস্তায়। ঘটনার জেরে কৈলাস যাত্রাবন্ধ হওয়ার পাশাপাশি ধসের জেরে আটকে পড়েছেন হাজারেরও বেশি মানুষ। জানা গিয়েছে, সিমলিকোটে আটকে থাকা তীর্থযাত্রির সংখ্যা ৫২৫ জন, হিলসা এবং তিব্বতে আটকে রয়েছেন ৫০০ জন। যাদের মধ্যে শুধুমাত্র সিমলিকোটে আটকে থাকা মানুষের মধ্যে ২৫০ জন কর্ণাটকের বাসিন্দা। তাঁদের উদ্ধারের জন্য নেপাল সরকারকে অনুরধ জানিয়েছেন ভারতের বিদেশমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ।

নেপাল সরকারের তরফে তীর্থযাত্রীদের উদ্ধারের জন্য সবদিক দিয়েই চেষ্টা চালানো হচ্ছে। ইতিমধ্যেই ঘটনাস্থলে চপার পাঠিয়েছে নেপাল সরকার। নেপালের পাশাপাশি ঘটনাস্থলের প্রতিটি মুহূর্তের খোঁজখবর চালাচ্ছে ভারত সরকারও। দুর্গতদের জন্য ইতিমধ্যেই জল ওষুধ, খাবার পাঠানো হয়েছে ত্রান শিবিরের পক্ষ থেকে। কাঠমান্ডুতে ভারতীয় দূতাবাসের হটলাইন নম্বর এবং রাষ্ট্রদূত প্রণব গণেশের ফোন নম্বর জরুরি হেল্পলাইন নম্বর হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে। শুধু তাই নয় তীর্থযাত্রীদের মধ্যে অনেকেই অন্ধ্রপ্রদেশের বাসিন্দা হওয়ায় গোটা পরিস্থিতির তদারক করছেন চন্দ্রবাবু নাইডু।

সূত্রের খবর, আবহাওয়ার পরিস্থিতি খারাপ হওয়ার কারণে বারে বারে ব্যাহত হচ্ছে উদ্ধারকার্য। স্থানীয় বিমান সংস্থাকে ভারত সরকারের তরফে অনুরোধ করা হয়েছে, যতদ্রুত সম্ভব উদ্ধার হওয়া তীর্থযাত্রীদের যেন ভারতে ফিরিয়ে আনার ব্যবস্থা করা হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here