FotoJet1199

ডেস্ক: গতকাল এক সাক্ষাৎকারে একের পর এক বিস্ফোরক উক্তি করতে থাকেন কঙ্গনা। তাঁর বক্তব্যের প্রথম টার্গেট ছিলেন পরিচালক ও সেন্সর বোর্ডের প্রাক্তন চেয়্যারম্যান পেহলাজ নিহালানি। কঙ্গনা গতকাল জানান, ”পেহলাজ নিহালানির ছবির জন্য একটি ফোটোশ্যুটের কথা বলা হয়েছিল। ফোটোশ্যুটের জন্য তাঁকে এমন একটি পোশাক পরতে দেওয়া হয়েছিল যেটা খুবই আপত্তিজনক ছিল। পেহলাজ নিহালানিজি আমাকে তাঁর একটি ছবি ‘আই লভ ইউ বস’-র জন্য অফার করেছিলেন। অভিনয়ের পাশাপাশি পোষ্টার শ্যুটের জন্য ফোটোশ্যুটে ডাকা হয়েছিল আমাকে। সেখানে তাঁরা আমাকে ‘সাটিন রোব’ নামে একটি পোশাক দিয়েছিলেন। আমাকে সেই পোশাকটি পরতে বলা হয়েছিল পোজ দেওয়ার জন্য।”

 

কঙ্গনা আরও জানান, ”পোশাক পরে নিজেকে অসহায় লাগছিল। এমনকি ভিতরের কোনও অন্তর্বাস ছিল না। অন্তত আমাকে তাঁরা এমন একটি পোশাক দিতে পারত যেটা পরে আরামদায়ক মনে হত, কিন্তু তাঁরা কিছুই করেননি। ওই ছবিতে যুবতীর চরিত্রে অভিনয় করার কথা ছিল। শেষমেষ ফোটশ্যুট করি কিন্তু ছবি থেকে নিজেকে দূরে রেখেছিলাম। সেই ছবি আমি করিনি। কারণ আমি বুঝেগিয়েছিলাম সিনেমাটি একটি অশ্লীল সিনেমা হবে।”

 

আর কঙ্গনার এহেন মন্তব্যের জন্য তাঁর দিকেই আঙুল তুলেছেন পেহলাজ। এদিন তিনি জানিয়েছেন, ”আমি প্রায় ১.৫ কোটি টাকা খরচা করেছি। বিজ্ঞাপন ও ফটোশ্যুটের জন্য একধিক টাকা খরচা করেছি। কঙ্গনার আমার সঙ্গে চুক্তি ছিল ফটোশ্যুটের। কিন্তু সেই বিষয়ে ধ্যান না দিয়ে উনি মহেশ ভাটের গ্যাংস্টার সিনেমাতে অভিনয় করতে চলে যান। এমনকি আমার সিনেমাতে অভিনয় করতেও আর রাজি হননি। এইভাবে আমাকে হেনস্থা করা কঙ্গনার উচিত হয়নি। আমি চাইলে ওঁর অনেক কিছু জিনিস নিয়ে আমি খেলতে পারতাম। সিনেমাটি কোনও অংশেই অশ্লীল ছিল না। বধূর চরিত্রে অভিনয় করত কঙ্গনা। এই সিনেমাতে অমিতাভ বচ্চনও অভিনয় করতেন। এটা কোনওদিন পর্ণ সিনেমা ছিল না। আমার ওই ধরনের সিনেমা বানানোর ইচ্ছাও ছিল না।”যদিও পেহলাজের এই মন্তব্যের পর কঙ্গনার কোনও প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি এখনও।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here