ডেস্ক: মশায় নাজেহাল বাংলা। গত বছর মশার জ্বালায় নাজেহাল হতে হয়েছে রাজ্য সরকারকে ডেঙ্গিতে লাফিয়ে বেড়েছে মৃতের সংখ্যা। পুরসভাগুলির সচেতনতা মূলক প্রচার ও পদক্ষেপ সত্ত্বেও গত দুই একাধিক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে রাজ্যে। উপায়ান্ত না দেখে, একরকম অতিষ্ঠ হয়ে এবার মশার আতুঁড় ঘরের খোঁজে ড্রোন নামাল কামারহাটি পুরসভা। শুক্রবার সকাল থেকে শুরু করে বিকেল পর্যন্ত বেলঘরিয়ার আকাশে উড়ে বেড়ালো ড্রোন।

প্রতিবছরই বর্ষার ঠিক শেষে রাজ্যে হানা দেয় ড্রোন। পুরসভার তরফে শহরবাসীকে বারেবারে নিজের এলাকা পরিস্কার রাখার করা বলা হলেও তাতে কাজ হয়নি কিছুই। আর পুরসভার তরফেও বাড়ি বাড়ি গিয়ে সম্ভব নয়, কার বাড়ির ছাদের ফুলের টবে, নারকেল খোলা, ফেলে রাখা টায়ারের মধ্যে জমা জল রয়েছে। মশার আঁতুড় ঘর এই সমস্ত জায়গাগুলিকে চিহ্নিত করতেই পুরসভার তরফে এই আয়োজন বলে জানা গিয়েছে। উল্লেখ্য, গত মঙ্গলবার কামারহাটি পুরসভার ২৯ নম্বর ওয়ার্ডে আরশিয়ানা পারভিন নামে ১২ বছরের এক বালিকা কলকাতার নীলরতন সরকার মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে মারা যায়। টেক্সম্যাকো এলাকার শ্রমিক কলোনির বাসিন্দা আরশিয়ানার মৃত্যুর প্রাথমিক কারণ হিসেবে ডেথ সার্টিফিকেটে লেখা হয় ‘ডেঙ্গি হেমারেজিক শক’। মৃতের সংখ্যা যাতে আরও না বাড়ে তার জন্য চেষ্টার কোনও খামতি রাখতে চাইছে না পুরসভা।

এই বিষয়ে পুরসভার তরফে জানানো হয়েছে শুক্রবার ২৯ নম্বর ওয়ার্ড অফিসের সামনে থেকে প্রায় ৪৫০ মিটার উচ্চতায় একটানা ওড়ানো হয় ড্রোন। প্রায় ২০ মিনিট ধরে ওড়ানো হয় এই ড্রোন। আশপাশ এলাকার বাড়ির ছাদ, কারখানার সমস্ত চিত্র তুলে আনে এই ড্রোন। ওই সমস্ত চিত্র থেকে সমস্যা দায়ক এলাকাগুলিকে চিহ্নিত করে পাঠানো হবে নোটিশ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here