পুরোদমে চালু হচ্ছে ওষুধের জোগান ও ল্যান্ডলাইন পরিষেবা, স্বাভাবিক হচ্ছে কাশ্মীর, দাবি প্রশাসনের

0
58
kolkata bengali news

মহানগর ওয়েবডেস্ক: ৩৭০ ধারা বিলোপের পর থেকেই উপত্যকায় জারি ছিল কার্ফু। বেশ কিছুদিন ধরেই প্রশাসনের দাবি ছিল দ্রুত ছন্দে ফিরছে কাশ্মীর। এবার সেই দাবি আরও জোরদার করল সীমান্তের প্রশাসন। শনিবার রাজ্যের মুখ্যসচিব রোহির কানসল জানান, কাশ্মীরের পরিস্থিতি জলদি স্বাভাবিক হয়ে উঠছে। ইতিমধ্যেই বেশ কিছু জায়গায় চালু করা হয়েছিল ল্যান্ডলাইন পরিষেবা। চলতি সপ্তাহের মধ্যেই শ্রীনগর সহ গোটা কাশ্মীরের সর্বত্র ল্যান্ডলাইন পরিষেবা চালু করার জন্য কাজ করছেন টেলিফোন এক্সচেঞ্জের কর্মীরা।

জানা গিয়েছে, আগামী সপ্তাহের মধ্যেই ৮টি টেলিফোন এক্সচেঞ্জের ৫৩০০টি ফোন চালু করে দেওয়া হবে। প্রসঙ্গত, এই রবিবার ২০ দিনের মাথায় পড়বে কাশ্মীরের এই অচলাবস্থা। একদিকে ল্যান্ডলাইন পরিষেবা চালু করার উদ্যোগ নেওয়া হলেও অন্যদিকে বন্ধ করে রাখা হয়েছে ইন্টারনেট পরিষেবা সহ মোবাইল পরিষেবা। সে প্রসঙ্গে কথা বলতে গিয়ে মুখ্যসচিব বলেন, ধীরে ধীরে চালু করে দেওয়া হয়ে সমস্ত রকম পরিষেবা এবং ছন্দে ফিরে আসবে কাশ্মীর।

অন্যদিকে জম্মুর বেশ কয়েকটি জায়গা থেকে কিছুদিন আগেই তুলে নেওয়া হয়েছে কার্ফু। চালু হয়েছে স্কুল-কলেজ ও অন্যান্য সরকারি পরিষেবা। দোকানপাঠও খুলেছে একাংশে। গত ৫ আগস্ট জম্মু-কাশ্মীর ও লাদাখকে দুটি পৃথক কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে ভাগ করে দেওয়ার পর থেকেই উপত্যকায় জারি ছিল ১৪৪ ধারা। যার ফলে গোটা উপত্যকা জুড়ে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল মোবাইল, টি.ভি, ল্যান্ড লাইন পরিষেবা।

পাশাপাশি মিডিয়ার মাধ্যমে ছড়াতে থাকা জল্পনাকে ভুয়ো বলে জানিয়ে দেওয়া হয় প্রশাসনের তরফে। মিডিয়ার তরফে দাবি উঠেছিল, উপত্যকার বহু ওষুধের দোকান বন্ধ থাকায় বিপাকে পড়ছে সাধারণ মানুষ। কিন্তু সরকারের তরফে সেই দাবি খারিজ করে জানিয়ে দেওয়া হয়, উপত্যকার ১১৬৬টি দোকানের মধ্যে ১১৬৫টি দোকান খোলা রয়েছে প্রয়োজনীয় ওষুধের জোগান বজায় রাখার জন্য। উপত্যকায় নিয়োগ করা হয়েছে অতিরিক্ত তিনজন সরকারি আধিকারিককে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here