news national

মহানগর ওয়েবডেস্ক: প্রতি বছরের ন্যায়ে এই বছরও বন্যা পরিস্থিতি ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে অসমে। প্রাণঘাতী এই বন্যায় মহা সংকটে পড়েছে প্রাণীকূল। সূত্রের খবর, বন্যায় কাজিরাঙা জাতীয় উদ্যানের প্রায় ৯০ শতাংশ জলের তলায় ডুবে গিয়েছে। যার ফলে বন্যপ্রাণ এখন উঁচু জায়গায় আশ্রয় খুঁজছে। এক শিংওয়ালা গণ্ডারগুলো নিজের বাসস্থান ছেড়ে উঠে এসেছে উঁচু জমিতে। অন্যদিকে বাঘ ও অন্যান্য জন্তুরা পার্বত্য এলাকার দিকে ক্রমশ এগিয়ে চলেছে। আশ্রয়ের খোঁজে অনেক জন্তু-জানোয়ার আবার গ্রামেও ঢুকে পড়ছে।

বন্যপ্রাণীরা লোকালয়ে ঢুকে পড়লেও তাদের উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে ফরেস্ট অফিসারদের দ্বারা। কোনও বন্যপ্রাণী যাতে আঘাত না পায় তা নিশ্চিত করতে কাজিরাঙা জাতীয় উদ্যানের ভেতর দিয়ে যাওয়া জাতীয় সড়কে সমস্ত গাড়ি চলাচল নিয়ন্ত্রণ করা হয়েছে। আধিকারিকরা জানিয়েছেন, এখনও পর্যন্ত ৯০ শতাংশ কাজিরাঙা জলের তলায়। বহু বন্য প্রাণীর মৃত্যু হয়েছে এবারের বন্যার জেরে। সরকারি হিসেব অনুযায়ী, অন্তত ৪৭টি প্রাণী এবারের বন্যায় মারা গেছে যার মধ্যে রয়েছে ৪১টি হগ ডিয়ার অর্থাৎ ভারতীয় প্রজাতির হরিণ। একইসঙ্গে মৃত্যু হয়েছে এক শিংওয়ালা গণ্ডারেরও।

প্রতিবারই অসমের বন্যা হয় এবং তার ব্যাপক প্রভাব পড়ে কাজিরাঙা ন্যাশনাল ফরেস্ট-এর উপর। এবারও সেই ধারা অব্যাহত। কাজিরাঙা ন্যাশনাল ফরেস্টে সবরকম বন্যপ্রাণী তো রয়েছেই, তবে এখানকার এক সিংহ গন্ডার বিশেষভাবে জনপ্রিয় গোটা দেশে। প্রতিবছরই প্রচুর মানুষ ছুটে আসেন এই কাজিরাঙা জাতীয় উদ্যানে। তবে এ বছর করোনা ভাইরাসের দাপটের কারণে মার্চ মাস থেকেই বন্ধ রয়েছে এই উদ্যান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here