নিজস্ব প্রতিবেদক, আরামবাগ: তৃণমূলের দুই গোষ্ঠীর সংঘর্ষে উত্তপ্ত হয়ে উঠল হুগলি জেলার আরামবাগ মহকুমার খানাকুলের রাজহাটি ও খানাকুল-২ ব্লকের বিডিও অফিস চত্বর। বুধবার পঞ্চায়েতের  মনোনয়ন পত্র জমা দেওয়াকে কেন্দ্র করে  খানাকুলের এই এলাকায় তীব্র  উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। এমনকি এই ঘটনায় তৃণমূলের এক গোষ্ঠীর লোকজন অপর গোষ্ঠীর লোকজনকে বেধড়ক মারধর করে এলাকা ছাড়া করে দেওয়ার অভিযোগ ওঠে। এর জেরে রাজহাটি বাজার এলাকায়  একটি মোটর বাইকে আগুন লাগিয়ে দেওয়া হয়। ভাঙচুর করা হয় একটি তিন চাকার টেম্পোতে। বেশ কয়েকজনকে মারধরও করা হয় বলে অভিযোগ। উভয় গোষ্ঠীর নেতা কর্মীরা কম বেশি আহত হয়েছেন বলে খবর।

ঘটনার খবর পেয়ে আরামবাগের এসডিপিও কৃষাণু রায় বিশাল পুলিশ বাহিনী নিয়ে ওই এলাকায় হাজির হন। র‍্যাফ নামিয়ে উভয় পক্ষের কর্মীদের লাঠি উঁচিয়ে তাড়া করে এলাকা ফাঁকা করা হয়। পুলিশের তাড়া খেয়ে ওই এলাকা ফাঁকাও হয়ে যায়। দিনের বেলায় রাজহাটির মত জমজমাট ও জনবহুল বাজার এক নিমেষে ফাঁকা হয়ে যায়। গন্ডগোল চলে দুপুর প্রায় আড়াইটে পর্যন্ত।

জানা গিয়েছে খানাকুলের বিধায়ক ইকবাল আহমেদের অনুগামী ও খানাকুল ব্লক যুব সভাপতি তথা পঞ্চায়েত সমিতির কর্মাধ্যক্ষ নজিবুল করিম অনুগামীদের মধ্যে এই ঝামেলা। দুই গোষ্ঠীর সংঘর্ষে এলাকা পুরোপুরি থমথমে হয়ে যায়। যদিও এই গন্ডগোলের বিষয়ে কেউই মুখ খোলেন নি। ব্লক যুব সভাপতি নজিবুল করিম সাংবাদিকদের বলেন, কোথায় গন্ডগোল হয়েছে আমি কিছু জানিনা। আমি নিজের পারিবারিক কাজেই ব্যস্ত ছিলাম। ইকবাল আহমেদ সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, কোথাও কোন গন্ডগোল হয়নি। খানাকুলে এখন উৎসব চলছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here