নিজস্ব প্রতিবেদক, উলুবেড়িয়া: বুধবার হাওড়ার পাঁচলা থানা এলাকার ছয় নম্বর জাতীয় সড়কের ওপর এক কলেজ ছাত্রকে অচৈতন্য অবস্থায় উদ্ধার করে টহলরত পুলিশ। ওই ছাত্রের হাত পা বাঁধা অবস্থায় ছিল। জানা গিয়েছে, পাঁচলা থানার কাছে সার্ভিস রোড এলাকায় ওই ছাত্রকে পড়ে থাকতে দেখে পুলিশে খবর দেয় স্থানীয়রা। পুলিশ গিয়ে তাকে উদ্ধার করে। ওই ছাত্রের বাড়ি পূর্ব মেদিনীপুরের তমলুক থানার ভান্ডারবেড়িয়া গ্রামে। সে নন্দকুমার কলেজের বি এ প্রথম বর্ষের ছাত্র। মঙ্গলবার রাতে তমলুক থানায় মিসিং ডায়েরী করে ছাত্রের পরিবার।

ছাত্রের পরিবার সুত্রে জানা গিয়েছে, সে মঙ্গলবার বিকেলে সাইকেল সারানোর জন্য বাড়ি থেকে বেরিয়েছিল। ছাত্রটি পাঁচলা থানার পুলিশকে জানিয়েছে সে ৪১ নম্বর জাতীয় সড়কের ধারে চা খেতে গিয়েছিল। তখনই তাকে চারজনের একটি দল একটি চারচাকা গাড়িতে তুলে নিয়ে যায় ও মুখে কিছু দিয়ে দেয়। বুধবার সকালে ছাত্রটির বাড়ির লোকজনের হাতে তাকে তুলে দেওয়া হয়। পুলিশ মনে করছে সম্ভবত ভুল করে ছাত্রটিকে অপহরন করে ফেলেছিল দুষ্কৃতিরা এবং তাকে মাদক খাওয়ানো হয়েছিল। উল্লেখ্য কিছুদিন আগে ভান্ডারবেড়িয়ার এক যুবক নিঁখোজ হয়ে গিয়েছিল ও পরে তার দেহ মেলে রাস্তার ধার থেকে। ফলে স্বভাবতই আতঙ্কে ছিল পরিবার। ছেলেকে ফিরে পেয়ে এখন অবশ্য খুশি পরিবারের লোকজন। ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে বলে পুলিশ জানিয়েছে।