kolkata bengali news

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: আদালতের নির্দেশিকাকে বুড়ো আঙুল দেখিয়েই মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা চলাকালীন কলকাতায় ১৪৪টি ওয়ার্ড এলাকায় মাইক বাজানোর নির্দেশ দিল কলকাতা কর্পোরেশন। এই মর্মে একটি নির্দেশিকা ও জারি করে কলকাতা কর্পোরেশন। সেই নির্দেশিকায় সই রয়েছে কলকাতা কর্পোরেশনের শিক্ষা বিভাগের চিফ ম্যানেজার ও সিনিয়র এডুকেশন অফিসারের। এদিকে এই নির্দেশিকা হাতে পেতেই ক্ষোভ তৈরি হয় শিক্ষক-শিক্ষিকাদের একাংশের। এরপরেই নিজেদের স্কুল এলাকার থানায় বিষয়টি লিখিত আকারে জানান তাঁরা।

কলকাতা কর্পোরেশনের থেকে প্রকাশিত নির্দেশিকার প্রতিলিপি পাঠানো হয়েছে এডুকেশন অফিসার, সমস্ত ডেপুটি এডুকেশন অফিসার সহ সব মাধ্যমের সমস্ত ইন্সপেক্টর অব স্কুলকে। এই নির্দেশিকায় বলা হয়েছে, ‘কেএমসিপি’র স্কুলগুলিতে ছাত্র-ছাত্রী ভর্তির করার উদ্যোগ নিতে হবে। বড় পরিসরে মাইক নিয়ে এই প্রচার চালাতে হবে অটোরিকশায় এলাকায় এলাকায় ঘুরে। ১০ মার্চের মধ্যে নতুন কারা ভর্তি হচ্ছে, সেই রিপোর্ট জমা দিতে হবে। গোটা বিষয়টি অত্যন্ত গুরুত্ব দিয়ে করতে হবে। এই প্রচারে অর্থ খরচ করতে হবে বিদ্যালয়গুলির নিজস্ব সাধারণ তহবিল থেকে। ৮০০ টাকার বেশি খরচ হলে তা প্রথমে মিটিয়ে দিতে হবে, পরে সমস্ত খরচের আসল নথি জমা দিয়ে টাকা তুলতে হবে।’

এদিকে পরীক্ষা চলাকালীন মাইক বাজানোর ওপর আদালতের নিষেধাজ্ঞা থাকা সত্বেও কি করে এই নির্দেশিকা প্রকাশ করা হয় এই অভিযোগ নিয়ে থানার দ্বারস্থ হন শিক্ষক শিক্ষিকাদের একাংশ। এরপরেই বিষয়টি জানাজানি হতেই এই নির্দেশিকার কিছুটা অন্য ব্যাখ্যা দেন কলকাতা কর্পোরেশনের মেয়র পারিষদ (শিক্ষা) অভিজিৎ মুখার্জি। এবিষয়ে তাঁকে প্রশ্ন করা হলে তিনি জানান, ‘এখন স্থানীয় কাউন্সিলর ও শিক্ষকদের বাড়ি বাড়ি পাঠানো হচ্ছে মুখে বলার জন্য। পরীক্ষাগুলো শেষ হলে তবেই মাইকে প্রচার করা হবে।’ যদিও এবিষয়ে বিরোধীদের বক্তব্য, কতটা বেহাল দশা হলে তবেই আদালতের নির্দেশ ভুলে গিয়ে পৌরভোটের মুখে এলাকায় এলাকায় মাইক বাজিয়ে স্কুলে ছাত্র ভর্তির জন্য প্রচার চালাতে হয় কলকাতা কর্পোরেশনকে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here