kolkata news

রক্তিমা দাস: রাস্তার নাম ছিল ‘মদের গলি’, হয়ে গেল ‘সারদা পল্লী’। আরেকটির নাম ছিল ‘পিতল পাড়া’, নতুন নামকরণ হয়েছে ‘বিবেকানন্দ পল্লী’। আগে নাম ছিল ‘মাড়োয়ারী বাগান’, নতুন নাম ‘রামকৃষ্ণ পল্লী’। বাংলার তিন মহামানবের নামে শহরের তিন বস্তির নামকরণ করল কলকাতা পুরসভা। যা কলকাতা পুরসভার ইতিহাসে নজিরবিহীন বলেই দাবি করছেন পুরসভার বস্তিবিভাগের মেয়র পারিষদ স্বপন সমাদ্দার।

উত্তর কলকাতায় কলকাতা পুরসভার ৩০ নম্বর ওয়ার্ডে ২১৮/ মানিকতলা মেইন রোড-মদের গলি, ২২৩/ মানিকতলা মেইন রোড-মাড়োয়ারী বাগান ও ২২৭/ মানিকতলা মেইন রোড-পিতল পাড়া বস্তিগুলির মানোন্নয়ন করে, তার নতুন নামকরণ করে বস্তি সম্পর্কে চিরাচরিত ধারনাই পাল্টে ফেলতে উদ্যোগী মেয়র পারিষদ। এই তিন বস্তিতে প্রায় ৮ হাজার মানুষ বসবাস করেন। যে মনীষীদের নামে এই তিনবস্তির নামকরণ হচ্ছে, তাদের মূর্তি বসানো তোরণও বস্তিতে প্রবেশের মুখে করা হচ্ছে। আগামী রবিবার মেয়র ফিরহাদ হাকিম এই তোরণ সহ নবনামাঙ্কিত তিন বস্তির উদ্বোধন করবেন। পাশে স্থানীয় কাউন্সিলার পাপিয়া ঘোষের কাউন্সিলার তহবিলের অর্থে তৈরি একটি যাত্রী প্রতীক্ষালয়েরও তিনি উদ্বোধন করবেন।

মেয়র পারিষদ বলেন, ‘মনীষীদের নামে বস্তির নামকরণ এটাই প্রথম উদ্যোগ। আগামী দিনে এই পুরবোর্ড যদি ফিরে আসে ও আমি যদি ফের বস্তি বিভাগের দায়িত্ব পাই, শহরের সব বস্তিরই কোন বরেণ্য ব্যক্তি বা মহাপুরুষের নামে বস্তির নামকরণ করার ইচ্ছা আমার রয়েছে। এতে একদিকে যেমন বস্তি সম্পর্কে সাধারণ মানুষের চিরাচরিত দৃষ্টিভঙ্গী পাল্টাবে, অন্যদিকে বস্তিবাসী বিশেষ করে বস্তির ছেলেমেয়েদের মনে মহাপুরুষ, বরেণ্য ব্যক্তিদের সম্পর্কে জানার ইচ্ছা জন্মাবে।’

স্বপনবাবুর কথায়, তৃণমূল কংগ্রেস পরিচালিত পুরবোর্ড শেষ পাঁচ বছর শহরের বস্তিবাসীদের মানোন্নয়নে বিরাট ভূমিকা পালন করেছে। ৪০০ এর উপরে বস্তি রয়েছে কলকাতায়। স্বপনবাবুর দাবি ‘বর্তমানে একটিও বস্তি কেউ দেখাতে পারবে না, যেখানে এলইডি আলো নেই। সর্বত্র পানীয় জলের সংযোগ পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। পর্যাপ্ত নিকাশির সংযোগও দেওয়া হয়েছে। শহরের বস্তিতে কাঁচা রাস্তা নেই বললেই চলে। এর পাশাপাশিও কমিউনিটি হল, স্কুল, স্বাস্থ্যকেন্দ্র, খেলার মাঠ করার উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে।’ চলতি আর্থিক বছরে শহরে বস্তি উন্নয়নে ৩২১ কোটি টাকার উপর অর্থ খরচ করা হয়েছে, যা এককথায় রেকর্ড বলেই এদিন স্বপনবাবু জানান।

উল্লেখ্য, ইতিমধ্যেই পূর্ব কলকাতার হাটগাছিয়া বস্তিকে দেশের প্ৰথম মডেল বস্তি হিসেবে গড়ে তুলেছে কলকাতা পুরসভা। এদিকে, বস্তির মধ্যে বাড়ির দেওয়ালগুলি নোংরা করা আটকাতে ও বস্তিবাসী ও তাদের সন্তানদের নৈতিক শিক্ষায় শিক্ষিত করতে বস্তির দেওয়ালে মহাপুরুষদের ছবি এঁকে তাদের বাণী লিখে তা প্রচার করার উদ্যোগ নিয়েছে কলকাতা পুরসভা। ইতিমধ্যেই হাটগাছিয়া সহ শহরের ৫ টি বস্তিতে এই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে বলে স্বপন সমাদ্দার জানান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here