টানা বৃষ্টিতে বাণভাসী শহর, দক্ষিণবঙ্গ জুড়ে দূর্ভোগ চলবে আরও ২৪ ঘন্টা

0
kolkata bengali news

মহানগর ওয়েবডেস্ক: গতকাল দুপুর থেকে শুরু হওয়া ভারী বৃষ্টিপাতের জেরে নাজেহাল শহরবাসী। শুক্রবার দুপুরে থেকে আকাশের মুখ ভার ছিল । বজ্রবিদ্যুৎ সহ বৃষ্টির জেরে শহরে মৃত্যু হয়েছে ১জনের, আহত ১৬জন। আরও ২৪ ঘণ্টা ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে বলে জানিয়েছিল আলিপুর আবহাওয়া দফতর। হাওয়া অফিস সূত্রে খবর, গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গ এবং বাংলাদেশ লাগোয়া এলাকায় একটি ঘূর্ণাবর্ত অবস্থান করছে। তার জেরেই উপকূলবর্তী জেলাগুলিতে ভারী থেকে অতিভারী বৃষ্টি চলবে।

আলিপুর আবহাওয়া দফতর জানিয়েছে, ঘূর্ণাবর্তের প্রভাবে কলকাতা, হাওড়া, দুই ২৪ পরগনা, দুই মেদিনীপুর এবং মুর্শিদাবাদে ভারী বৃষ্টি হবে। কোথাও কোথাও ৭ থেকে ১১ সেন্টিমিটারের বেশিও বৃষ্টি হতে পারে বলে সতর্ক করা হয়েছে। এই সময় মৎস্যজীবীদের সমুদ্রে যেতে নিষেধ করা হয়েছে।

বৃষ্টি দক্ষিনবঙ্গ বাসীর মনে খুশির আমেজ আনলেও, শহর কলকাতার অবস্থা শোচনীয়। শহরের নানা প্রান্তে জুড়ে জল জমে একপ্রকার অচল অবস্থায় পরিনত হয়েছে। শুক্রবারের বৃষ্টিতেই জল জমে যানবাহন চলাচলে ব্যাঘাত ঘটেছে কলেজ স্ট্রিট, মহাত্মা গান্ধী রোড, সেন্ট্রাল অ্যাভিনিউ, ঠনঠনিয়া কালীবাড়ি, মুক্তারাম বাবু স্ট্রিট, আমহার্স্ট স্ট্রিটসহ উত্তরের বিভিন্ন এলাকায় । জল জমেছে পার্কসার্কাস, ইএম বাইপাস, সায়েন্সসিটি, ঢাকুরিয়া, খিদিরপুর ও বেহালাসহ দক্ষিণ কলকাতার যাদবপুর সহ একাধিক জায়গায়। আজ সকালেও সেই পরিস্থিতির তেমন একটা উন্নতি ঘটেনি। গতকালের বৃষ্টিতেই জল জমে গিয়েছিল কলকাতা কর্পোরেশনের সদর দপ্তরে। বৃষ্টির সঙ্গে সঙ্গে দোসর হয়ে এসেছে বাজ।

আবহাওয়া দপ্তরের পূর্বাভাস অনুযায়ী, কলকাতা সহ গোটা দক্ষিণবঙ্গ জুড়ে আজও চলবে বজ্র্যবিদ্যুৎ সহ ভারী বৃষ্টিপাত। গতকাল মধ্যরাত থেকেই একনাগারে চলছে বৃষ্টি। সকালে থেকেই আকাশের মুখভার। ইতিমধ্যেই হাওয়া অফিসের তরফে জানিয়ে দেওয়া হয়েছিল বাংলাদেশ সংলগ্ন এলাকায় একটি ঘূর্নাবর্তের জেরে সক্রিয় হয়ে উঠেছে মৌসুমী বায়ু জার জেরে এই বৃষ্টিপাত।

টানা বৃষ্টীতে শহরের নানা প্রান্তে হাঁটু সমান জল জমে গিয়ে ব্যাহত হয়েছে যানচলাচল পরিষেবা। হয়রানির মুখে পড়তে হচ্ছে নিত্যযাত্রীদের। পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে কলকাতা কর্পোরেশন ও লালবাজার ট্রাফিক কন্ট্রোলের তরফে খোলা হয়েছে অতিরিক্ত কন্ট্রোলরুম। অন্যদিকে বৃষ্টির জন্য দমদম বিমান বন্দর থেকে বাতিল করা হয়েছে বিমান। কলকাতা দিল্লি গামী বিমানের সময় ও পিছিয়ে দেওয়া হয়েছে। সময়মতো ল্যান্ড করান যায়নি তিনটি বিমানকে। জল জমার ছবি দেখা গিয়েছে বিমান বন্দরেও।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here