নেতিবাচক শক্তি দূরে সরিয়ে ‘মাতৃ ভাবনা’র কুমারী পুজো দেখতে বেলুড়ে ঢল

0
kolkata bengali news

নিজস্ব প্রতিবেদক, হাওড়া: রামকৃষ্ণ ঠাকুরের মতে, অল্পবয়সী মেয়েরা যখন কুমারী থাকে সেই বয়সে জগতের নেতিবাচক শক্তি থেকে তারা দূরে থাকে। তখনই তাদের মধ্যে মাতৃভাবনা প্রকাশ পায়। এই ধারণা থেকেই কুমারী পুজোর প্রচলন। রামকৃষ্ণ মিশন প্রতিষ্ঠার পর দেবী রূপে কুমারী পুজোর সূচনা করেন বিবেকানন্দ। অষ্টমীর দিন (রবিবার) বেলুড় মঠে এই মতকে সামনে রেখেই হয়ে গেল কুমারী পুজো। তা দেখতেই ঢল নেমেছিল মানুষের।

মহাষ্টমীর সকালে যথাযোগ্য মর্যাদায় বেলুড় রামকৃষ্ণ মঠে কুমারী পুজো অনুষ্ঠিত হল। এদিন অষ্টমীর সকালে প্রথমে অষ্টমী বিহিত পুজো অনুষ্ঠিত হয়। এরপর সকাল নটায় শুরু হয় কুমারী পুজো। কুমারী পুজো উপলক্ষে বেলুড় মঠে লাখো মানুষের সমাগম ঘটে। নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হয় হাওড়া সিটি পুলিশের তরফ থেকে। সাক্ষাৎ দেবী রূপে ‘সুভগা’ নামে এক কুমারীর পুজো করা হয়।

স্বামী বিবেকানন্দ বেলুড় মঠে কুমারী পুজো শুরু করেছিলেন। সেই রীতি মেনেই বেলুড় মঠের সন্ন্যাসীরা মহাষ্টমীর দিন কুমারীকে দেবী হিসেবে উপাসনা করেন। শ্রীশ্রীঠাকুরের মতে, অল্পবয়সী মেয়েরা যখন কুমারী থাকে সেই বয়সে জগতের নেতিবাচক শক্তি থেকে তারা দূরে থাকেন। তখনই তাদের মধ্যে মাতৃভাবনা প্রকাশ পায়। এই পুজো উপলক্ষ্যে কুমারীকে শাড়ি পরিয়ে ফুল ও গয়নায় সাজিয়ে তোলা হয়। যেভাবে যে নিয়মে মা দুর্গাকে পুজো করা হয় ঠিক সেই সেই রীতি মেনেই কুমারী পুজো করা হয়। দেবী দুর্গাকে দেওয়া অর্ঘ্য ও নৈবেদ্যই সমর্পিত হয় কুমারীর পায়েও। পবিত্র মন্ত্র পড়ে কুমারীর পুজো করা হয়। আরতি করা হয়। সন্ন্যাসী এবং ভক্তরা কুমারীকে দেবী জ্ঞানে ফুল দিয়ে অঞ্জলি দেন। প্রার্থনা জানান ভক্তরা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here