ডেস্ক: কাকতালীয়তার জায়গা রাজনীতির ময়দানে আছে কিনা জানা নেই। তবে রাজনীতির পট পরিবর্তন এবং সাম্রাজ্য পতনের খেলায় এক অদ্ভুত সংখ্যার খেলা উঠে এসেছে। যখনই বিহারের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী লালুপ্রসাদ যাবদ জেলে গিয়েছেন, তখনই পতন ঘটেছে কেন্দ্রীয় সরকারের। ব্যাতিক্রম নেই কেউই, ইন্দিরা গান্ধি থেকে শুরু করে মনমোহন সিং। লালুর জেল যাত্রার সঙ্গে অদ্ভুত ভাবে মিলে গিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকারের পতন। আর এখানেই প্রশ্ন উঠছে, তাহলে কি ২০১৯ সালেও একইভাবে পতন হবে মোদী সাম্রাজ্যের?

শুরু হয়েছিল ১৯৭৭ সালে। লোকসভা নির্বাচনে হেরে গিয়েছিলেন তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধি। এই নির্বাচনের ঠিক দুবছর আগেই অর্থাৎ ১৯৭৫ সালেই জেল যাত্রা হয়েছিল অবিভক্ত জনতা দলের যুব নেতা লালুপ্রসাদ যাদবের। এরপর চলে আসা যাক ১৯৯৬ সালে। পশুখাদ্য কেলেঙ্কারি মামলায় জেলে যেতে হয়েছিল লালুকে। আশ্চর্যজনক ভাবে এর দু’বছরের মাথায় ফের ক্ষমতাচ্যুত হয় তৎকালীন ইন্দ্রকুমার গুজরালের সরকার। এরপর থেকে রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা এই কাকতালীয় ঘটনার নাম দেন ‘টু-ইয়ার এফেক্ট থিওরি।’

চমক এখানেই শেষ নয়, এরপর ২০০৪ সালে অটল বিহারী বাজপেয়ী সরকারকে সরিয়ে ক্ষমতায় আসে ইউপিএ-১। প্রধানমন্ত্রীর কুর্সিতে বসেন মনমোহন সিং। কিন্তু দেখা যায় ২০০২ সালে গ্রেফতার হয়ে জেলে গিয়েছিলেন আরজেডি প্রধান লালু। তার দু’বছরের মধ্যেই কেন্দ্রীয় সরকারকের পতন। এখানেই শেষ ভাবলে ভুল করবেন, আরও রয়েছে উদাহরণ। ২০১৪ সালে গেরুয়া ঝড় তুলে বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে ক্ষমতায় আসেন নরেন্দ্র মোদী। কিন্তু এখানেও একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি। ২০১২ সালেই জেলে গিয়েছিলেন লালু, তার দু’বছরের মধ্যেই পতন ঘটে ইউপিএ-২ সরকারের।

এসব সংখ্যাতত্ত্বের সঙ্গে রাজনীতির ময়দানে কোন সামঞ্জস্য নেই, তা অতি বাস্তব। কিন্তু ইতিহাস সাক্ষী রয়েছে, লালু যখনই জেলে গিয়েছেন তার দুবছরের মধ্যে পতন হয়েছে কেন্দ্রীয় সরকারের। ফলে ২০১৭ সালের শেষ মাসে লালুর জেল যাত্রা ‘টু-ইয়ার এফেক্ট থিওরি’র ধাঁচে ২০১৯ সালে মোদী সরকারের পতন ঘটাবে না, একথা গ্যারেন্টি দিয়েও বা কে বলতে পারে।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here