মোষের সিং পালিশ করতে ছয় বছর ১৬ লক্ষ টাকা খরচ করেছিলেন লালু প্রসাদ যাদব!

0
472

মহানগর ওয়েবডেস্ক: বিহারে একসময় তাঁর নামে বাঘে গরুতে জল খেত এক ঘাটে। এখন অবশ্য সেই প্রতাপ হারিয়ে গিয়েছে। পশুখাদ্য কেলেঙ্কারিতে দোষী সাব্যস্ত হয়ে জেলে যাওয়ার পর অনেকটাই নিষ্প্রভ হয়ে পড়েছেন বিহারের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ও কেন্দ্রীয় রেলমন্ত্রী লালু প্রসাদ যাদব। সেই দুর্নীতিতেই এবার তাঁর এক নতুন কীর্তির কথা প্রকাশ পেল সংবাদ মাধ্যমে। জানা গিয়েছে, ১৯৯০ সাল থেকে প্রায় ১৯৯৬ সাল পর্যন্ত মোষের সিং পালিশ করার জন্য সর্ষের তেল কিনতেই নাকি খরচ হয়েছিল ১৬ লক্ষ টাকা! হিসেবে গড়মিলে এই তথ্য উঠে আসতেই রীতিমতো শোরগোল পড়ে গিয়েছে দেশজুড়ে।

১৯৯০ সালে লালুপ্রসাদ যাদব বিহারের মুখ্যমন্ত্রী থাকাকালীন এই দুর্নীতি করেন বলে অভিযোগ। সেই দুর্নীতির প্রায় তিন দশক পর বেরিয়ে এল ওই কেলেঙ্কারি সম্পর্কে চমকে দেওয়ার মতো তথ্য। পশুখাদ্য কেলেঙ্কারি সম্পর্কে নতুন ওইসব তথ্য দিয়েছেন বিহারের উপ মুখ্যমন্ত্রী সুশীল কুমার মোদী। তিনি জানাচ্ছেন, ওই পাঁচ বছরে ১৬ লক্ষ টাকা খরচ করে ৪৯,৯৫০ লিটার কেবল সর্ষের তেল কেনা হয়েছিল। তাও আবার মহিষের শিং চকচকে রাখার জন্য। হাটওয়ার্ক মিল্ক সাপ্লাই কাম ডেয়ারি ফার্মের ম্যানেজার ড. জানুয়েল ভেঙ্গরাজ ভুয়ো বিল বানিয়ে তুলে নিয়েছেন ওই বিপুল টাকা। বিহারের বিধানসভায় বার্ষিক অধিবেশন চলাকালীন ১৯৭৭ সাল থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত যেই যেই খাতে অতিরিক্ত খরচ হয়েছে সেই নিয়ে আলোচনা হচ্ছিল। এই সময় বিহারের উপ মুখ্যমন্ত্রীর মুখ থেকে শোনা যায় এই আজব খরচের কথা।

তবে চমক এখানেই শেষ নয়। কী ভাবে পশুখাদ্য মামলায় ঘোটালা হয়েছে তার বিবরণ শুনে অবাক হয়ে যেতে হয়। জানা গিয়েছে, চাইবাসা, দুমকা, জামশেদপুর, গুমলা ও পাটনা জেলায় ৯৫৯টি ভেড়া, ৫৬৬৪টি শুকর, ৪০,৫০৪টি মুরগী ও ১৫৭৭টি ছাগলের জন্য কেনা হয়েছিল ২৫৩.৩৩ টাকার খাবার। কিন্তু সরকারি হিসেবে অর্থাৎ খাতায় কলমে দেখানো হয়েছিল, কেনা হয়েছে ১০.৫৩ কোটি টাকার খাওয়ার!

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here