স্কুলে তালা ঝোলালেন জমিদাতারা, বন্ধ হয়ে গেল মিড ডে মিলও! বিপাকে স্কুল পড়ুয়ারা

0
37
kolkata bengali news

নিজস্ব প্রতিবেদক, রায়গঞ্জ: জমিদাতার প্রতিশ্রুতি পূরন না হওয়ার প্রতিবাদে স্কুলে তালা ঝুলিয়ে দিলেন জমিদাতার পরিবারের লোকেরা। ফলে একপ্রকার বাধ্য হয়েই খোলা আকাশের নীচে গাছ তলায় বসে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঠন পাঠন চলছে। বন্ধ মিড ডে মিলেরর খাওয়ারও। চরম দূর্দশার মধ্যেই চলছে বিদ্যালয়ের পঠন পাঠন। উত্তর দিনাজপুর জেলার সদর মহকুমার হেমতাবাদ ব্লকের পূর্ব ইসলামপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ঘটনা। সংশ্লিষ্ট ব্লকের বিডিও জানিয়েছেন, ‘এর আগেও এই বিদ্যালয়ে তালা ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছিল। পরে পুলিশ প্রশাসনকে সঙ্গে নিয়ে তালা খুলে দেওয়া হয়েছিল। আবার তালা ঝোলানো হয়েছে শুনেছি। জেলা প্রাথমিক শিক্ষা দফতরে বিষয়টি জানানো হয়েছে। নির্দেশ হলেই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

স্কুলে ছাত্র আছে, আছে শিক্ষকও। স্কুল ভবনও পাকা। কিন্তু স্কুলের ছাত্রছাত্রীদের বিদ্যালয় ভবনের ২০০ মিটার দূরে গাছতলায় বসে ক্লাস করতে হচ্ছে এই ঘটনার জেরে। জঙ্গলের মধ্যে স্কুলের ক্লাস বসায় আতঙ্কিত শিক্ষক থেকে পড়ুয়ারাও। এদিকে স্কুলের জমিদাতা জহুরুদ্দিন আহমেদের পরিবারের দাবি, ২০০১ সালে স্কুলে চাকরির প্রতিশ্রুতি দিয়ে তার স্বামীর কাছ থেকে সরকার জমি নিয়েছিল। জমি দানের ১৮ বছর পেরিয়ে যাওয়ার পরও স্কুলে তার পরিবারের কারোরই চাকরি হয়নি। ২০০৫ সালে স্বামীর মৃত্যু হওয়ায় চরম দারিদ্রতার মধ্যে তার দিন কাটাতে হচ্ছে। প্রশাসনের কাছে একাধিকবার আবেদন নিবেদন করেও কাজের কাজ কিছুই হয়নি। এবার সেই জমি ফিরিয়ে নেবার দাবিতে সোচ্চার হয়েছেন তারা। গত ২৫ জুলাই স্কুলের জমি ফিরিয়ে নেওয়ার দাবিতে স্কুলে তালা ঝুলিয়ে দেন তারা। স্কুলের পঠন পাঠন স্বাভাবিক রাখতে স্কুল কর্ত্তৃপক্ষ স্কুল থেকে ২০০ মিটার দূরে আমবাগানের মধ্যে ত্রিপল পেতে ছাত্রছাত্রীদের পঠন পাঠন করাচ্ছেন। দিন তিনেক এই অবস্থা চলার পর পুলিশের সহায়তায় ব্লক প্রশাসন স্কুলে এসে তালা ভেঙে স্কুলের স্বাভাবিক অবস্থা ফিরিয়ে আনে।

প্রশাসনের কর্তারা বেরিয়ে যেতে ওইদিন সন্ধ্যায় আবারও স্কুলে তালা লাগানো হয়। স্কুলে তালা বন্ধ থাকায় এই ভরা বর্ষাতেই রোদ-বৃষ্টি মাথায় নিয়ে জঙ্গলের মধ্যে আমবাগানে পঠনপাঠন সচল রাখা হচ্ছে। স্কুল আমবাগানে চললেও যে কোন সময় ছাত্রছাত্রীদের বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটার আশঙ্কা থাকছেই। ফলে চরম আতঙ্কের মধ্যে রয়েছেন শিক্ষকেরা। জমিদাতার পরিবার নিজেদের আবস্থানে অনড়। তারা দাবি করেন জমি নেওয়ার সময় জহুরুদ্দিন আহমেদকে যে প্রতিশ্রুতি সরকার দিয়েছিল অবিলম্বে সেই প্রতিশ্রুতি প্রশাসনকে পালন করতে হবে। বর্তমানে তারা আর চাকরি চাইছেন না। দান করা জমি তাদের ফিরিয়ে দিতে হবে। প্রশাসন জোর করে স্কুল খুলতে এলে তারা বাধা দেবেন। প্রশাসনিক হস্তক্ষেপে স্কুলের তালা খুলে স্বাভাবিক পঠন পাঠন চালু করার আবেদন করেছেন স্কুলের শিক্ষক থেকে অভিভাকেরা। সেই সঙ্গে তারা দাবি করেছেন মিড ডে মিল চালু করারও।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here