kolkata news

 

নিজস্ব প্রতিনিধি, উলুবেড়িয়া: করোনা আতঙ্কের জেরে হাসপাতাল থেকে আসা সদ্যোজাত-সহ স্বামী-স্ত্রীকে বাড়িতে ঢুকতে না দেওয়ার আভিযোগ উঠল বাড়িওয়ালার বিরুদ্ধে। শুধু তাই নয়, দু’দিনের মধ্যে তাদের বাড়ি খালি করে দেওয়ার হুমকি দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ। লকডাউনের মাঝে বিপদের মধ্যেই শেষ পর্যন্ত নিজেদের সদ্যোজাত শিশুকন্যাকে নিয়ে বর্তমানে স্বামী-স্ত্রী অন্য একটি ফ্ল্যাটে আশ্রয় নিয়েছে। উলুবেড়িয়া পুরসভার ২৭ নং ওয়ার্ডের নোনা শিবতলার এই অমানবিক ঘটনা দেখে হতভম্ব প্রতিবেশীরা।

জানা গেছে, একটি বেসরকারি সংস্থায় কর্মরত শঙ্খ হাইত স্ত্রী ও মা-বাবাকে নিয়ে গত দু’বছর ধরে নোনা শিবতলার একটি বাড়িতে ভাড়া থাকেন। গত বৃহস্পতিবার শঙ্খর স্ত্রী শম্পা উলুবেড়িয়ার একটি বেসরকারি হাসপাতালে একটি কন্যাসন্তানের জন্ম দেন। অভিযোগ, সোমবার স্বামী-স্ত্রী তাদের সদ্যোজাতকে সঙ্গে নিয়ে বাড়িতে এলে বাড়িওয়ালা তাদের ঘুরে ঢুকতে বাধা দেন। এমনকী, শম্পা ও সদ্যোজাতকে সোনারপুরে বাপের বাড়ি নিয়ে যেতে বলেন। সদ্যোজাতকে নিয়ে স্বামী-স্ত্রী একাধিকবার তাদের ঘরে ঢুকতে দেওয়ার আবেদন করলেও বাড়িওয়ালা তাদের ঘরে ঢুকতে না দেওয়ায় শেষে একটি ফ্ল্যাটে সদ্যোজাতকে নিয়ে আশ্রয় নিয়েছেন তারা।

ঘটনা সর্ম্পকে শঙ্খ হাইত বলেন, সোমবার স্ত্রী ও তিনদিনের শিশুকন্যাকে নিয়ে বাড়িতে এলে বাড়িওয়াল জানান, এইসময় ঘরে ঢুকতে দেওয়া যাবে না। অন্য কোথাও যেতে বলে ৩০ এপ্রিলের মধ্যে ঘর ছেড়ে দেওয়ার হুমকিও দেন। লকডাউনের মাঝে এখন ঘর ছেড়ে কোথায় যাবেন বলায় বাড়িওয়াল জলের ও ইলেকট্রিক লাইন কেটে দেওয়ার হুমকিও দেন। শঙ্খর বক্তব্য, কী কারণে আমাদের ঘরে থাকতে দেওয়া হবে না বাড়িওয়ালা সেটা পরিষ্কার করে না বললেও আকার ইঙ্গিতে বুঝিয়ে দেন হাসপাতাল থেকে আসায় আমাদের প্রতি এই অবিচার। তার অভিযোগ, শুধু আমাদের বাড়িতে ঢুকতে দেওয়াই নয়, আমার মা-বাবাকেও নতুন বাড়িতে আসতে দেওয়া হচ্ছে না।

অন্যদিকে, নিজের সন্তানকে নিয়ে বিপদে পড়া শম্পার বক্তব্য, ভাড়া বাড়ি থেকে কিছু বিছানা ও কয়েকটি বাসনপত্র নিয়ে নতুন একটি ফ্ল্যাটে এলেও শ্বশুর-শাশুড়িকে আসতে না দেওয়ায় সমস্যায় আছি। বিশেষ করে লকডাউনের এই সময় সমস্যা আরও বেড়েছে। বিষয়টি নিয়ে শঙ্খর মা অশোকা হাইত বলেন, বাড়িওয়ালার কথামতো সমস্ত আচার-বিচার মেন নাতনি ও বউমাকে ঘরে ঢোকাতে চাইলেও বাড়িওয়ালা তাদের ঘরে ঢুকতে দেননি।

অন্যদিকে, বাড়িওয়ালা মমতা মান্না জানান, তার কিছু সমস্যার কারণে তিনি তাদের ঘরে ঢুকতে দেননি। এমনকি আগামী ২১ দিন পর্যন্ত তাদের ঘরে ঢুকতে দেবেন না বলেও জানান। এ বিষয়ে উলুবেড়িয়া পুরসভার চেয়ারম্যান অভয় দাস জানান, বিষয়টি আমি শুনেছি। ওই ভদ্রমহিলা একটা মিথ্যা আতঙ্কে সদ্যোজাত ও তার মা-বাবাকে ঘরে ঢুকতে দেননি। উদ্যোগ নিয়ে ওদের ঘরে ঢোকানোর ব্যবস্থা করা হবে বলে জানান তিনি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here