kolkata news

 

নিজস্ব প্রতিনিধি: এই মুহূর্তে নির্বাচন কমিশনের হাতে আছে চূড়ান্ত ক্ষমতা। কিন্তু সেই ক্ষমতার কোনও ব্যবহার নেই। একটা সার্কুলার দিয়ে জনগণের ওপর ছেড়ে দিচ্ছে কমিশন। সার্কুলার নয়, আমরা কমিশনের কাছে পদক্ষেপ চাইছি। আজ এই ভাবে নির্বাচন কমিশনকে কার্যত তুলোধনা করেন হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি। হাইকোর্টের এই পর্যবেক্ষণের পর এবার নড়েচড়ে বসল নির্বাচন কমিশন।

আজ বৃহস্পতিবার, সন্ধ্যায় কমিশনের পক্ষ থেকে একটি নির্দেশিকা জারি করা হয়েছে। তাতে বলা হয়েছে, শেষ দু’দফার ভোটের আগে আর কোনও পদযাত্রা করা যাবে না। একইসঙ্গে করা যাবে না কোনও সাইকেল বা বাইক মিছিল। কিন্তু কোনও সভা পুরোপুরি বন্ধ করার নির্দেশ দেওয়া হয়নি কমিশনের তরফে। তবে বলা হয়েছে সর্বোচ্চ ৫০০ জন নিয়ে কোভিড প্রোটোকল মেনে করতে হবে সভা। আজ বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৭টা থেকে ওই নির্দেশিকা বলবৎ হয়েছে। ওই নির্দেশিকায় বলা হয়েছে, এর আগে যে বাইক র‍্যালি বা পদযাত্রার অনুমতি দেওয়া হয়েছিল, সেগুলি সব খারিজ করা হল।

সভা-সমাবেশের ক্ষেত্রে বেশ কিছু বিধিনিষেধ আরোপ করা হলেও রাজনৈতিক দলগুলি তা মানছিল না বলে অভিযোগ করতে থাকে কোনও কোনও মহল। তারপর আজ হাইকোর্টে ভর্ৎসনার মুখে পড়ে নির্বাচন কমিশন। এরপর আজ বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় নির্বাচন কমিশন কোভিড প্রোটোকল মাথায় রেখে এই নির্দেশিকা জারি করেছে বলে মনে করছে ওয়াকিবহাল মহল।

উল্লেখ্য, কোভিড প্রোটোকল না মানলে কড়া ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য কমিশনে দাবি জানায় সংযুক্ত মোর্চা। সংযুক্ত মোর্চার পক্ষ থেকে সিপিএম নেতা শমীক লাহিড়ী সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে অভিযোগ জানান কোভিড প্রোটোকল না মেনে প্রচার অব্যাহত। এদিন মালদায় মুখ্যমন্ত্রী ও কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সভা করে সেটাই প্রমাণ করেছে। হাইকোর্টের পাশপাশি একাধিক মহল থেকে আসতে থাকা চাপে আজ কমিশন এই পদক্ষেপ করতে বাধ্য হয়েছে বলে মনে করছে ওয়াকিবহাল মহল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here