ডেস্ক: দেশের প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈকে সরাতে বড়সড় চক্রান্ত করা হচ্ছে। সোমবার এমনই দাবি করে চাঞ্চল্য ফেলেছিলেন সুপ্রিমকোর্টের আইনজীবী উৎসব বেইনস। এদিন তাঁর সেই দাবির প্রেক্ষিতে ওই আইনজীবীকে নোটিশ দিল দেশের শীর্ষ আদালত। সোমবার ষড়যন্ত্রের প্রেক্ষিতে যে হলফনামা তিনি শীর্ষ আদালতে পেশ করেছেন, তার ভিত্তিতে তার কাছে জবাব তলব করেছেন শীর্ষ আদালতের তিন সদস্যের ডিভিশন বেঞ্চ। যেখানে রয়েছেন, বিচারপতি অরুণ মিশ্র, বিচারপতি রোহিনটন ফলি নরিম্যান এবং বিচারপতি দীপক গুপ্তা।

নিজের দাবির প্রেক্ষিতে আগামী ২৪ এপ্রিল শীর্ষ আদালতে উপস্থিত থেকে ওই দাবির প্রেক্ষিতে প্রমাণ পেশ করতে বলা হয়েছে শীর্ষ আদালতের আইনজীবী উৎসবকে। উৎসবের দাবি ছিল, প্রধান বিচারপতির বিরুদ্ধে ভুয়ো মামলা সাজাতে তাঁকে ৫০ লক্ষ থেকে দেড় কোটি টাকা পর্যন্ত ঘুষ দিতে চেয়েছিল এক ব্যক্তি। তাঁর আরও দাবি, জেট এয়ারওয়েজের প্রতিষ্ঠাতা নরেশ গয়াল-সহ কর্পোরেট জগতের কয়েক জন প্রভাবশালী ব্যক্তি এবং ফিক্সার রোমেশ শর্মা ওই ষড়যন্ত্রে সামিল থাকতে পারেন। গোটা বিষয়টি নিয়ে ইতিমধ্যেই শুরু হয়েছে মামলা। আর হাইভোল্টেজ এই মামলার জন্য বিশেষ বেঞ্চ গঠন করেছেন প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ।

উল্লেখ্য, সম্প্রতি গোটা দেশকে চমকে দিয়ে দেশের প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈয়ের বিরুদ্ধে যৌন হেনস্থার অভিযোগ আনেন শীর্ষ আদালতেরই প্রাক্তন এক কর্মী। মহিলার দাবি অনুযায়ী, ঘটনাটি ঘটেছিল ২০১৮ সালের ১১ অক্টোবর। ওইদিন তাঁর সঙ্গে অভব্যতা করেন দেশের প্রধান বিচারপতি। তাঁকে জড়িয়ে ধরে তাঁর সারা শরীরে হাত বোলানোর চেষ্টা করা হয়। এই ঘটনার প্রতিবাদ করলে তাঁকে সুপ্রিমকোর্টের চাকরি থেকে বরখাস্ত করা হয়। শুধু তাই নয়, প্রভাব খাটিয়ে আক্রমণ চালানো হয় তাঁর পরিবারের উপরও। দিল্লি পুলিশের চাকরি থেকে সাসপেন্ড করা হয় তাঁর স্বামী ও দেওরকে। চাকরি থেকে সরিয়ে দেওয়া হয় ওই মহিলার ভাইকেও। যদিও এই পুরো অভিযোগকে সম্পূর্ণ মিথ্যা অভিযোগ বলে দাবি করেছেন রঞ্জন গগৈ সহ, শীর্ষ আদালতের একাধিক বিচারপতি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here