kolkata news

 

নিজস্ব প্রতিনিধি: রাজ্যে করোনা সংক্রমণের হার বিপজ্জনক ভাবে বাড়তে শুরু করেছে। এই অবস্থায় রাজনৈতিক দলগুলির মিটিং-মিছিলে জনসমাগম নিয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করে। কিন্তু, কোনও দল সে দিকে নজর না দেওয়ায় তাদের দায়িত্ববোধ নিয়ে উঠতে থাকে প্রশ্ন। ইতিমধ্যে, হাইকোর্ট হস্তক্ষেপ করেছে বিষয়টিতে। একটি রায়ে বলা হয়েছে, বর্তমান পরিস্থিতিতে নির্বাচনী প্রচার হোক বা অন্য যে কোনও ক্ষেত্রে বড় ভিড় এড়াতে হবে। প্রচার সভা বা কর্মসূচিতে যাতে মাত্রাতিরিক্ত ভিড় না হয় জেলাশাসক এবং রাজ্যের নির্বাচনী আধিকারিককে দায়িত্ব নিতে হবে সেটা দেখার জন্য।

এমন পরিস্থিতিতে বামফ্রন্ট পরবর্তী দফার নির্বাচনের প্রচার কর্মসূচি সীমিত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। সিপিএম পলিটব্যুরো সদস্য মহম্মদ সেলিম বলেছেন, আগামী দফার ভোটের প্রচারে আর বড় আকারের কোনও জনসভা করা হবে না। কোভিড-বিধি মেনে ছোট আকারের পথসভা ও বাড়ি বাড়ি গিয়ে প্রচারের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। সভায় যাতে অতিরিক্ত ভিড় না হয় এবং মাস্ক-স্যানিটাইজার ব্যবহার, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার মতো কোভিড বিধি মেনে চলা হয়- সে ব্যাপারে জেলা নেতৃত্ব ও প্রার্থীদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলায় কেন্দ্র ও রাজ্য সরকারের ভূমিকার নিন্দা করে তিনি বলেন, এই দুই সরকারই করোনা নিয়ে উদাসীন। তাই তাঁদের দল আগামী দিনে মানুষকে সচেতন করে তুলবে। মানুষের পাশে দাঁড়াবে এবং অসহায় মানুষকে ত্রাণ দেওয়ার মতো কাজ করবে বলে মহম্মদ সেলিম জানিয়েছেন।

অন্যদিকে, নির্বাচন কমিশনের জারি করা বিধিনিষেধ কঠোর ভাবে যাতে পালন করা হয়, সেটা দেখার নির্দেশ আগেই দিয়েছে হাইকোর্ট। প্রধান বিচারপতি টিবি রাধাকৃষ্ণনের ডিভিশন বেঞ্চ এই নিয়ে দায়ের হওয়া এক জনস্বার্থ মামলার রায়ে স্পষ্ট জানিয়েছে, বর্তমান পরিস্থিতিতে নির্বাচনী প্রচার হোক বা অন্য যে কোনও ক্ষেত্রে বড় ভিড় এড়াতে হবে। প্রচার সভা বা কর্মসূচিতে যাতে মাত্রাতিরিক্ত ভিড় না হয় জেলাশাসক এবং রাজ্যের নির্বাচনী আধিকারিককে দায়িত্ব নিতে হবে সেটা দেখার জন্য। যদি কোথাও করোনা বিধি ভঙ্গ হয়, তার জন্য জেলাশাসক ব্যক্তিগত ভাবে দায়বদ্ধ থাকবেন বলে জানানো হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here