মহানগর ওয়েবডেস্ক: বাড়ির সামনেই হেডফোন কানে দিয়ে গান শুনছিল অষ্টম শ্রেণীর এক বালিকা। হঠাৎ করেই সাক্ষাৎ মৃত্যুদূত! সকলের অগোচরে বালিকাকে টেনে নিয়ে গেল চিতাবাঘ। সম্প্রতি ঘটনাটি ঘটেছে উত্তরাখণ্ডের নৈনিতালের রামনগরে।

শনিবার সন্ধ্যাবেলায় বেলপাড়াও ফরেস্ট রেঞ্জের কাছে রামনগরে নিজেদের ছোট বাড়ির সামনে বসেছিল ওই বালিকা। কানে তার হেডফোন গোজা ছিল এবং সে গান শুনছিল। সেই সময় হঠাৎ করেই একটি চিতাবাঘ তার ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে তাকে জঙ্গলের দিকে টেনে নিয়ে যায়। পরে সেই বালিকার ক্ষতবিক্ষত দেহ উদ্ধার করে বনদফতর।

বেলপাড়াও ফরেস্ট রেঞ্জের অফিসার সন্তোষ পন্থ জানান, ‘গ্রামবাসীদের থেকে খবর পেয়েই আমরা ঘটনাস্থলে ছুটে যাই। সেখান থেকে একটি চিরুনি ও হেডফোন উদ্ধার হয়েছে। বালিকাটি হয়তো হেডফোনে গান শুনছিল। তাই চিতাবাঘের আগমন সে বুঝতেই পারেনি।’

এই নিয়ে শেষ একমাসে কুমায়ুন অঞ্চলে মোট আটজন চিতাবাঘের হানায় প্রাণ হারালেন। ইতিমধ্যেই চিতাবাঘটিকে ধরার জন্য দুটি খাঁচা পেতেছে বনবিভাগ। সেই সঙ্গে বেশ কিছু ক্যামেরাও জঙ্গলের বিভিন্ন জায়গায় বসানো হয়েছে। ‘ক্যামেরা ট্র্যাপে চিতাবাঘটিকে আমরা দেখতে পেয়েছি। বালিকাটিকে যেখান থেকে সে ধরেছিল, আবার সে সেখানেই এসেছিল। আমাদের পাতা খাঁচার দিকেও যাচ্ছিল। কিন্তু গ্রামবাসীরা তাকে দেখে হল্লা করায় সেটি পালায়’, বলেন পন্থ।

ইতিমধ্যেই বালিকার দেহ তার পরিবারের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে। ক্ষতিপূরণ স্বরূপ রাজ্য সরকারের তরফ থেকে পরিবারের হাতে তিন লক্ষ টাকা তুলে দেওয়া হবে। ইতিমধ্যেই প্রায় এক লক্ষ টাকা ক্ষতিপূরণ দেওয়া হয়েছে। গত শুক্রবার চম্পায়তের তনকপুরে এক বৃদ্ধকেও আক্রমণ করে একটি চিতাবাঘ। তিনি গুরুতর আহত হলেও প্রাণে বেঁচে যান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here