animal news

মহানগর ওয়েবডেস্ক: কিছুদিন আগেই সোশ্যাল মিডিয়ায় ঝড়, রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি ভ্লাদিমির পুতিন নাকি লোকজনদের ঘরে রাখতে রাস্তায় সিংহ ছেড়ে দিয়েছেন! যদিও তা একেবারেই ভুল। কিন্তু ভারতে লক ডাউন উপেক্ষা করে যারা রাস্তায় বেরোচ্ছেন তাদের আটকানোর জন্য ভারতের রাস্তাতেও কিছু হিংস্র প্রাণী ছেড়ে দেওয়ার ‘অসাধারণ’ আইডিয়া দিয়েছিলেন কিছু নেটিজেনরা। কিন্তু এবার পরিস্থিতিতে অনেকটা সেই রকমই হয়ে যাবে, তা অন্তত ভাবতে পারেননি চণ্ডীগড়ের বাসিন্দারা।

সোমবার সকালে হঠাৎ করেই হুলুস্থুল কাণ্ড চণ্ডীগড়ের বিলাসবহুল এলাকা সেক্টর ফাইভে। সেখানে একজনের বাড়ির ভেতরেই ঢুকে পড়েছে জলজ্যান্ত একটি চিতাবাঘ সদৃশ প্রাণী! শহরে বাঘ পড়ার খবর মুহূর্তেই আগুনের মতো ছড়িয়ে পরে। শেষমেশ পুলিশও সারা শহরে মাইকিং করে জানিয়ে দেয়, শহরে চিতাবাঘের আগমনের কথা এবং সেই কারণে সবাইকে বাড়ির বাইরেও বেরোতে নিষেধ করে দেওয়া হয়।

এমনিতে লক ডাউন চলছে গোটা দেশে। মানুষ খুব একটা বাড়ির বাইরে না বেরোলেও বাগানে গিয়ে হাওয়া খাওয়া, বা সদর দরজায় দাঁড়িয়ে একটু প্রতিবেশির হাড়ির খবর নেওয়াটা বজায় ছিল। কিন্তু হিংস্র বাঘের আগমনের খবর চাউর হতেই সবাই দ্বারে খিল এঁটে ঘরের ভিতর। পুলিশ প্রাণীটিকে চিতাবাঘ হিসেবে বললেও, বন্যপ্রাণী বিশেষজ্ঞরা খুব নিশ্চিত হতে এখনই পারছেন না।

সেক্টর থ্রি থানার স্টেশন হাউজ অফিসার যশপাল সিং জানান, ‘চিতাবাঘটি দেখা যাওয়ার পরেই আমরা গোটা শহরে মাইকিং করেছি। সবাইকে ঘর থেকে বেরোতে বারন করা হয়েছে। এখনও পর্যন্ত জন্তুটি কাউকে আক্রমণ করেনি। তবে বন দফতরের আধিকারিকরা প্রাণীটিকে ধরার চেষ্টা করছেন।’

উল্লেখ্য, করোনার জেরে লক ডাউন জারি হওয়ার পর থেকেই শুনশান প্রায় গোটা দেশ। দূষণ একেবারে কমের দিকে। আর মানুষের দাপাদাপি কমতেই বন্যপ্রাণীরাও যেন কিছুটা স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলেছে। দেশের একাধিক শহরে হরিণ, ময়ূর, হাতি এমনকি অতি দুর্লভ সিভেট ক্যাট দেখা যাওয়ার খবর সামনে এসেছে। খোদ চণ্ডীগড়ের পুলিশ অফিসার যশপাল সিং দাবি করেছেন রবিবার তিনি সেক্টর ফাইভেই কতগুলি হরিণ দেখতে পেয়েছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here