news bengali kolkata

নিজস্ব প্রতিবেদক, উলুবেড়িয়া: বাঙালির জিভে জল আনার জন্য মাছের জুড়ি মেলা ভার। জাল বা ছিপে করে মাছ ধরা দেখতে অভ্যস্ত আপামর বাঙালি। কিন্তু হাতেই ধরা হচ্ছে গভীর জলের মাছ! তাও আবার কচিকাঁচারাই ধরছে মাছ। অবাক হচ্ছেন? এই দৃশ্য কোনও গ্রামের নয়। হাওড়া লাগোয়া উলুবেড়িয়ার।

গভীর জলের মাছ নদীর পাড়ে বসেই হাত দিয়ে ধরছে স্থানীয়রা। ট্যাংরা, গলদা চিংড়ি, চেঙে, ভেটকি, ভোলা আরও কত কী! একদিনের ঘটনা নয়, গত দুদিন ধরে এই ঘটনার সাক্ষী উলুবেড়িয়ার নদী তীরবর্তী এলাকার বাসিন্দারা। পুরুষ, মহিলার পাশাপাশি মাছ ধরার আনন্দে মেতেছে এলাকার কচিকাঁচারাও।

নদীর তীরে ঝাঁকে ঝাঁকে আসছে প্রিয় সব মাছ, এই খবর চাউর হতেই হুগলি নদী তীরবর্তী এলাকাতে জাল নিয়ে ভিড় জমিয়েছে স্থানীয় মানুষ। উলুবেড়িয়ার জগদীশপুর থেকে কাঁজিয়াখালি পর্যন্ত প্রায় পাঁচ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে চলছে মাছ ধরা। কালশাপা, ফুলেশ্বর, জগদীশপুর বাঁশতলা, কালীনগর, হীরাগঞ্জ, হীরাপুর, কাঁজিয়াখালি ও সংলগ্ন অঞ্চল যেন উৎসবে মেতেছে। হীরাপুর এলাকা থেকে হাত দিয়েই কেজি আটেকের ট্যাংরা মাছ ধরেছেন স্হানীয় যুবক। হাত দিয়ে শুধু ট্যাংরাই নয়, বড় বড় গলদা চিংড়িও ধরছেন স্হানীয় যুবক থেকে শুরু করে মহিলা ও কচিকাঁচারা।

খবর পাওয়া মাত্র অদ্ভুত এই দৃশ্য দেখতে এলাকায় ছুটে এসেছেন রাজ্য মৎস্য দফতরের আধিকারিকরা। কী কারণে এত মাছ নদীর পাড়ে আসছে তা নিয়ে ধোঁয়াশায় প্রশাসন। আধিকারিকরা তা জানতেই নদীর জলের নমুনা সংগ্রহ করেছে। দফতরের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, জল পরীক্ষা করার পরেই জানা যাবে আসল কারণ। মৎস্য কর্মীরা জানিয়েছেন, নদীতীরে শুধু জ্যান্ত মাছই আসছে না। ভেসে উঠছে মরা মাছও। যা আশঙ্কার।

বৃষ্টির সময় অনেক মাছই প্রজনন বা ডিম পাড়ার জন্য নদীর ধারে আসে। বসন্তে অকাল বৃষ্টিতে এই কারণেই কি মাছেদের তীরে চলে আসা নাকি কোনও বিষক্রিয়া, তা নিয়ে ধোঁয়াশা আছেই।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here