news sports

মহানগর ওয়েবডেস্ক: করোনা কালে বিসিসিআই-এর কাছে আইপিএল আয়োজন করাটা রীতিমতো চ্যালেঞ্জের। ভারত থেকে টুর্নামেন্ট সরে গিয়েছে মরুদেশ সংযুক্ত আরব আমিরশাহিতে।
এর মধ্যে আবার চিনা পণ্য বয়কটের জেরে টুর্নামেন্ট থেকে সরে গিয়েছে মূল স্পনসর ভিভো। বোর্ডের চাপ ক্রমাগত বেড়েই চলেছে। বোর্ড অর্থনৈতিক সঙ্কটের মধ্যে পড়বে বলেই মনে করছেন অনেকে।

বিসিসিআই সুপ্রিমো সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের কাছে ৪০০ কোটির স্পনসর হারানোটা বড় কোনও ব্যাপার নয়। একটি লাইভ চ্যাটে এমনটাই জানিয়েছেন বোর্ড প্রেসিডেন্ট। সৌরভ বলছেন, “এটা ছোট একটা সমস্যা। বিসিসিআই অন্যন্ত শক্তিশালী প্রতিষ্ঠান। অতীতে খেলা থেকে শুরু করে প্লেয়ার ও প্রশাসকরা মিলে খেলাটা এত শক্তিশালী জায়গায় নিয়ে গিয়েছে যে, বিসিসিআই এসব ছোটখাটো সমস্যা অনায়াসে সামলে নেবে।”

সৌরভ এও জানিয়ে দিলেন যে, বোর্ডের বিকল্প রাস্তাও তৈরি আছে। তাঁর সংযোজন, “বিচক্ষণ মানুষ, ব্র্যান্ড এবং কর্পোরেট সবসময় প্ল্যান এ ও প্ল্যান বি নিয়ে চলে। বিসিসিআইও সেটাই করে। পেশাদারি দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে কড়া হাতে সবটা করতে হয়। রাতারাতি বড় জিনিস হয় না কিংবা চলেও যায় না। দীর্ঘ সময়ের প্রস্তুতিতে হারানোর পাশাপাশি সাফল্যও থাকে।”

ভিভোর সঙ্গে বোর্ডের ৪৪০ কোটি টাকার চুক্তি ছিল। নিউজ এইটটিনের রিপোর্ট বলছে এই বিরাট অঙ্কের এক তৃতীয়াংশ টাকা পেলেও বিসিসিআই এই পরিস্থিতিতে উতরে যাবে। জানা যাচ্ছে বাইজু, আনঅ্যাকাডেমির পাশাপাশি স্পোর্টস ফ্যান্টাসি প্ল্যাটফর্ম ড্রিম ইলেভেন ও মাই সার্কেল ইলেভেনও দরপত্র জমা দিতে পারে স্পনসরশিপের জন্য।এই মুহূর্তে দাঁড়িয়ে মনে করা হচ্ছে ভিভোর পরিবর্তে টাইটেল স্পনসর হিসেবে ই-কমার্স জায়ান্ট অ্যামাজন সবার আগে রয়েছে। কারণ আইপিএলের সঙ্গেই তারা উৎসবের মরসুমে বাজারটাও ধরতে চায়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here