নিজস্ব প্রতিবেদক, কোচবিহার ও পুরুলিয়া: ক্ষোভ বিক্ষোভ আগে থেকেই ছিল। সময় যতই এগিয়েছে ততই বিক্ষুব্ধদের সঙ্গে দলের দূরত্বও বেড়েছে। কেওু কেউ তো ভোট ঘোষণার আগেই দল ছেড়েছেন। কাউকে কাউকে সাসপেন্ডও করা হয়েছে। অনেকের সঙ্গেই দলের সম্পর্কের ছেদ ঘটছে চিরতরে। কিন্তু এত কিছু করেও লোকসভা নির্বাচনের মুখে দল ছাড়ার প্রবণতা কমছে না রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেসে। রবিবার রাজ্যের দুই প্রান্তে দুটি জেলায় শাসক দল ছাড়ার প্রবণতা ফের দেখা গেল, যা ভোটের মুখে শাসকদলকে কিছুটা হলেও চিন্তায় ফেলে দিয়েছে।

কোচবিহার জেলায় নিশিথ প্রামানিক বিজেপিতে যোগদান দেওয়ার পর নিজের প্রচার শুরুর আগেই ব্যাপক ভাঙন ধরালেন তৃণমূলে। রবিবার শাসক দল ছেড়ে প্রায় দেড় হাজার কর্মী বিজেপিতে যোগদান করলেন। এদিন বিজেপির জেলা কার্যালয়ে দফায় দফায় নাটাবাড়ি বিধানসভা কেন্দ্র এবং কোচবিহার উত্তর বিধানসভা কেন্দ্র থেকে তৃণমূলের কর্মীরা বিজেপিতে যোগদান করেন। তৃণমূল ছাড়াও এদিন বামফ্রন্টের বেশ কিছু কর্মী বিজেপিতে যোগদান করেন। বিজেপির জেলা সভাপতি মালতি রাভা রায় জানান, শুধু নাটাবাড়ি বিধানসভা কেন্দ্র থেকেই প্রায় এক হাজার তৃণমূল কর্মী বিজেপিতে যোগদান করেছে। খুব শীঘ্রই তৃণমূলের বেশ কিছু জেলা পরিষদের সদস্য এবং পঞ্চায়েত সমিতির সদস্যও বিজেপিতে যোগদান করতে চলেছে। ভোটের মুখে তৃণমূল ছেড়ে নেতাকর্মীরা বিজেপিতে যোগদান করায় স্বাভাবিকভাবেই চাপের মুখে পড়েছে কোচবিহার জেলা তৃণমূল নেতৃত্ব।

 

প্রায় একই ছবি এদিন দেখতে পাওয়া গিয়েছে রাঢ়বাংলার প্রান্তজেলা পুরুলিয়াতে। এদিন জেলার বরাবাজার ব্লকের ধ্যালাতবামু অঞ্চলের বিভিন্ন গ্রাম থেকে প্রায় ৫৭০টি পরিবার তৃণমূল এবং সিপিএম ছেড়ে বিজেপিতে যোগদান করেন। এদের হাতে বিজেপির ঝান্ডা ধরিয়ে দলে যোগদান করান বিজেপির ওবিসি মোর্চার পুরুলিয়া জেলা সভাপতি সুভাষ মাহাত। যোগদানকারীদের তালিকায় ছিলেন সিপিএমের বরাবাজার জোনাল কমিটির সদস্য সুনীল সিংও, যিনি আগে সিপিএম থেকে তৃণমূলে গিয়েছিলেন। এদিন আবার তিনি গেরুয়া শিবিরে এলেন। এছাড়াও ছিলেন সিপিএমের জোনাল কমিটির সদস্য গৌরাঙ্গ মাহাত। এদিন বিজেপিতে যোগদান করার পরে সুভাষ মাহাত বলেন, ‘বরাবাজার এলাকায় বিজেপি শক্তিশালী ছিলই। আজকে দুজন নেতা সহ এতগুলি পরিবার আমাদের দলে যোগদান করায় দল আরও শক্তিশালী হল। যার প্রভাব পড়বে এই লোকসভা নির্বাচনে।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here