kolkata news

 

নিজস্ব প্রতিনিধি, মালদা: করোনা সংক্রমণ রুখতে ভিনরাজ্য থেকে আসা পরিযায়ী শ্রমিকদের রাখা হয়েছে কোয়ারেন্টিন সেন্টারে। সরকারি সেই কোয়ারেন্টিন সেন্টারে নিম্নমানের বাসি খাবার দেওয়ার অভিযোগ তুলে বিক্ষোভ দেখালেন সেখানে থাকা পরিযায়ী শ্রমিকরা। নিম্নমানের খাদ্যসামগ্রী বিলি করার প্রতিবাদ করায় শ্রমিকদের মারধরেও অভিযোগ উঠেছে খাদ্যসামগ্রী বিলি করা কর্মীদের বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ঘটেছে মালদার হরিশ্চন্দ্রপুরে। পরে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

দেশজুড়ে চলছে দ্বিতীয় দফার লকডাউন। করোনা সংক্রমণ রুখতে ভিনরাজ্য থেকে আসা পরিযায়ী শ্রমিকদের ১৪ দিনের জন্য রাখা হচ্ছে কোয়ারেন্টিনে। জেলার বিভিন্ন প্রান্তে সরকারি স্কুল, কলেজগুলিতে কোয়ারেন্টিন সেন্টার খোলা হয়েছে। কোয়ারেন্টিন সেন্টার করা হয়েছে হরিশ্চন্দ্রপুর হাসপাতালেও। অভিযোগ, সেই কোয়ারেন্টিন সেন্টারে পরিযায়ী শ্রমিকদের নিম্নমানের ও বাসি খাবার দেওয়া হচ্ছে। এই অভিযোগ তুলে পরিযায়ী শ্রমিকরা বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন। প্রতিবাদ করায় খাবার দিতে আসা কর্মীরা পরিযায়ী শ্রমিকদের নিগ্রহ করে বলেও অভিযোগ। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যায় পুলিশ। পুলিশি হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে।

কোয়ারেন্টিনে থাকা এক পরিযায়ী শ্রমিক রঞ্জিত মণ্ডল বলেন, আমাদের যে খাবার দেওয়া হচ্ছে তা নিম্নমানের। আমরা ভাল খাবার দিতে বললে আমাদের কোনও কথায় কর্ণপাত করা হয়নি। বাধ্য হয়ে আমরা খাবার ফেলে দিয়েছি। খাবার ফেলে দেওয়ায় ওই ব্যক্তি মদ্যপ অবস্থায় তাঁকে মারধর করে।

এবিষয়ে হরিশ্চন্দ্রপুর ১ ব্লকের বিডিও অনির্বাণ বসু জানান, অভিযোগের বিষয়টি তিনি শুনেছেন। খাবার নিয়ে একটা গণ্ডগোল হয়েছিল। শ্রমিকদের পলিব্যাগে খাবার দেওয়ার কারণে খাবারে গন্ধ থাকছে। আজ থেকে সেই খাবার অ্যালুমিনিয়াম ফয়েলে দেওয়ার ব্যবস্থা করা হচ্ছে। পাশাপাশি মারধরের যে অভিযোগ উঠেছে তাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here