ডেস্ক: সমাবর্তন সভা হলেও আদপে শুক্রবারের বিশ্বভারতীয় বাংলাদেশ ভবন ছিল দুই বাংলার মিলনক্ষেত্র। শান্তিনিকেতনে সমাবর্তন অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন, ভারতের প্রধানমন্ত্রী তথা বিশ্বভারতীর উপাচার্য নরেন্দ্র মোদী এবং বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এছাড়াও ছিলেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও রাজ্যপাল কেশরী নাথ ত্রিপাঠী সহ আরও অনেকে। সেই মঞ্চ থেকেই নরেন্দ্র মোদীর ভাষণের পরই চিরাচরিত ভঙ্গিতে নিজের বক্তব্য রাখেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

বাংলাদেশের জাতীয় কবি কাজি নজরুল ইসলামকে শ্রদ্ধা জানানোর পাশাপাশি, বাংলাদেশের সঙ্গে পশ্চিমবঙ্গের আত্মিক বন্দন যে কতখানি তা ফুটিয়ে তোলেন নজরুলের বিখ্যাত কবিতার লাইন ‘মোরা একই বৃন্তে দু’টি কুসুম’-এর মাধ্যমে। একইসঙ্গে বাংলায় নজরুল অ্যাকাডেমি ও নজরুল তীর্থের পাশাপাশি বঙ্গবন্ধুর নামেও একটি ভবন গড়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেন তিনি। অন্যদিকে, মমতার উষ্ণ অভ্যর্থনায় খুশি বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও। সভায় বক্তব্য রাখতে গিয়ে তিনি বলেন, ‘নজরুল বিশ্ববিদ্যালয় তাকে যে ডিলিট সম্মান দিচ্ছে তাতে তিনি অভিভূত।’

উল্লেখ্য, শনিবারই রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তাকে যে সম্মান দিয়েছে সেই সুত্র ধরে এই বৈঠক ইতিবাচক হবে বলে আশা রাখছেন শেখ হাসিনা। মনে করা হচ্ছে, দুই বাংলার এই বৈঠকে আলোচ্য বিষয় হতে পারে তিস্তার জলবন্টন চুক্তি। এই বৈঠক থেকে তার কোনও রফা সুত্র বের হতে পারে বলে আশা রাখছে বাংলাদেশ। অন্যদিকে, পদ্মার ইলিশ রাজ্যে রপ্তানি প্রসঙ্গেও আলোচনা হতে পারে এই বৈঠকে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here