corona news

নিজস্ব প্রতিবেদক: করোনা মোকাবিলাই একমাত্র লক্ষ্য। কিন্তু লকডাউন চলাকালীন উঠে আসছে একাধিক অভিযোগ। সে বিষয়ে কড়া বার্তা দিলেন মুখ্যমন্ত্রী। কাউকে বিপদে যাতে না পড়তে হয় সেজন্য ঘোষণা করলেন একগুচ্ছ সুবিধা। জানালেন, করোনা পরীক্ষাকেন্দ্র শীঘ্রই চালু হবে উত্তরবঙ্গে।

news bengali kolkata

করোনা রুখতে বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছে রাজ্য সরকার। বিরোধীরাও করেছেন মুখ্যমন্ত্রীর প্রশংসা। নবান্নে সাংবাদিক বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রীর ঘোষণা করলেন, উত্তরবঙ্গ মেডিক্যালে খুব শীঘ্রই চালু হবে করোনা পরীক্ষা কেন্দ্র। বার্ধক্য ভাতা-পেনশন একসঙ্গে দু’মাসের দেওয়া হবে বলেও ঘোষণা করেন মুখ্যমন্ত্রী। বলেন, তিন মাসের দেওয়া যায় কিনা তা নিয়েও ভাবা হচ্ছে। একমাস বিনামূল্যে রেশন দেওয়া হবে, এই কথা আবারও জানিয়ে দেন মমতা।

পুলিশের মানবিক মুখের প্রশংসা করেও বেশ কিছু অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশকে কড়া বার্তা দেন মুখ্যমন্ত্রী। বলেন, কোনও মতেই অত্যাবশ্যকীয় পণ্য কিনতে বাধা দেওয়া যাবে না। অভিযোগ পেয়ে ৭-৮ পুলিশকে ক্লোজ করা হয়েছে বলেও জানান মুখ্যমন্ত্রী। করোনা নিয়ে বিভিন্ন গুজব ছড়াচ্ছে। চলছে বিভ্রান্তিমূলক প্রচার। গোয়েন্দা বিভাগকে তা দেখার নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী।

জমায়েত না করার জন্য সমস্ত ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানকে রাজ্যবাসীর হয়ে ধন্যবাদ জানান মমতা। নবান্নের বৈঠকে বলেন, করোনা মোকাবিলার জন্য তহবিলে দান করলে আয়কর দিতে হবে না।

তিনি জানান, মুখ্যমন্ত্রী ত্রাণ তহবিলের অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে আপৎকালীন তহবিলকে। ১০,০০০ স্যানিটাইজার-এর অর্ডার দেওয়া হয়েছে বলেও জানান তিনি।

এদিনের বৈঠকে তিনি বলেন, লকডাউন অমান্য করে অহেতুক রাস্তায় বেরোলে কড়া পদক্ষেপ নেওয়া হবে। সেই সঙ্গে পুলিশকে ও ক্ষমতার অপব্যবহার ও লাঠিচার্জ না করতে কড়া বার্তা দেন মুখ্যমন্ত্রী। বলেন, ‘কেউ ক্ষমতার অপব্যবহার করবেন না। মানুষের সমস্যা হলে মানবিক হতে হবে। মানুষের পাশে দাঁড়াতে হবে’। একান্ত প্রয়োজনেই কেউ বেরিয়েছেন কিনা তা খতিয়ে দেখতে নির্দেশ দেন মমতা।

লকডাউন এ অহেতুক রাস্তায় বেরোলেই তার বিরুদ্ধে নেওয়া হবে কড়া ব্যবস্থা। এমনটাই নির্দেশ প্রশাসনের। তবে ক্ষমতার অপব্যবহার করা যাবে না। শুক্রবার নবান্নে সাংবাদিক বৈঠকে একথা স্পষ্ট করে দেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ইতিমধ্যেই পুলিশের বিরুদ্ধে অহেতুক লাঠিচার্জ এর অভিযোগ উঠেছে। এই অভিযোগ পাওয়ার পরই এদিন পুলিশদের ক্ষমতার অপব্যবহার না করার নির্দেশ দেন মুখ্যমন্ত্রী।

পুলিশের বিরুদ্ধে অভিযোগ এসেছে হাওড়ায় নিজের সন্তানের জন্য দুধ আনতে যাচ্ছেন এমন যুবককে পিটিয়ে মেরেছে পুলিশ। যদিও এই অভিযোগ অস্বীকার করা হয়েছে পুলিশের তরফে। এসব অভিযোগে পাচ্ছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। এরপর এই শুক্রবার নবান্নে এক বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী সাফ জানান, “কেউ ক্ষমতার অপব্যবহার করবেননা। মানুষের সমস্যা হলে মানবিক হতে হবে। মানবিক ভাবে মানুষের পাশে দাঁড়াতে হবে।” ইতিমধ্যেই পুলিশের বিরুদ্ধে ১২টি অভিযোগ তার কাছে এসেছে বলে জানান মুখ্যমন্ত্রী। এরমধ্যে ৭-৮ জন পুলিশকে ক্লোজ করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

পুলিশদের এদিন তিনি নির্দেশ দিয়েছেন, অত্যাবশ্যকীয় প্রয়োজনীয় জিনিস কিনতে গেলে তাদের আটকানো যাবে না। ওষুধ খাবার দুধ ইত্যাদির মতো প্রয়োজনীয় জিনিস যদি কেউ কিনতে যায় সে ক্ষেত্রে তার প্রয়োজন বুঝে তারপর সেই ব্যক্তিকে ছেড়ে দিতে হবে।

তবে ভৎসনার পাশাপাশি কলকাতা পুলিশের প্রশংসাও করেন মুখ্যমন্ত্রী। তিনি বলেন, লকডাউন চলাকালীন পুলিশের বিরুদ্ধে অভিযোগ থাকলেও, পুলিশের মানবিক মুখ উঠে এসেছে। কোথাও প্রসূতিকে নিজেদের গাড়ি করে হাসপাতালে পৌঁছে দেওয়া হোক বা কোথাও কিশোরকে রক্ত দেওয়া সবেতেই মানবিক রূপ দেখা গেছে কলকাতা পুলিশের। এদিন মুখ্যমন্ত্রী কঠিন হাতে অবস্থা নিয়ন্ত্রণের পাশাপাশি বারবার মানবিক থাকার আবেদন করেছেন পুলিশ আধিকারিকদের।

প্রসঙ্গত, বুধবারই মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছিলেন অত্যাবশ্যকীয় পণ্য, হোম ডেলিভারি এবং সবজি বিক্রেতারা এক জেলা থেকে অন্য জেলায় নিয়ে আসছেন, তাঁদের কোনও ভাবেই আটকাতে পারবে না পুলিশ। এমনকি রাজ্যজুড়ে একটি পাস ইস্যু করা হবে বলেও জানিয়েছিলেন। কোনও ব্যক্তি যদি এক জেলা থেকে অন্য জেলায় কাজ করতে যান, তাহলে সে ক্ষেত্রে ওই ব্যক্তিকে পাস দেওয়া হবে। যাকে এই পাস দেওয়া হবে তাঁকে কোনওভাবেই রাস্তায় আটকাতে পারবে না পুলিশ। গোটা রাজ্যে একটি পাসেই কাজ হবে। তবে কেনাকাটা বা যেকোন পরিষেবার ক্ষেত্রেই দূরত্ব বজায় রাখার কথা বলেন মুখ্যমন্ত্রী।

এদিন তিনি বলেন, রাজ্যে পাঁচ হাজার থার্মাল এসে পৌঁছেছে। আরও ৫০০০ থার্মাল গানের অর্ডার দেওয়া হয়েছে। ইতিমধ্যেই থার্মাল গান বিভিন্ন জায়গায় পাঠিয়ে কাজ শুরু হয়েছে বলেও জানান মুখ্যমন্ত্রী। রাজ্যবাসীকে আশ্বস্ত করে বলেন, ওষুধ সংক্রান্ত কোনও সমস্যা নেই রাজ্যে। যথেষ্ট যোগান রয়েছে ওষুধের।

news kolkata bengali

এদিন, আলিপুরে রিক্সা চালকদের মধ্যে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেন মমতা। উপস্থিত ছিলেন পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম, পুলিশ কমিশনার অনুজ শর্মা। কালীঘাটের রিকশা চালকদের মধ্যেও এদিন খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেন মমতা। অন্যদিকে মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশ মতো সাউথ ট্রাফিক গার্ড থানার পক্ষ থেকে এলাকার অভুক্ত, ভবঘুরে, গরীব মানুষদের খাবার বিলি করেন ট্রাফিক গার্ডের ওসি কাঞ্চন হাজরা, সার্জেন্ট দীপ্তিময় ঘোষ সহ প্রমুখ। জানানো হয়েছে যতদিন লকডাউন চলবে ততদিন এভাবেই খাদ্যদ্রব্য বিতরণপোস্তা বাজার মার্চেন্টস্ অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে জানানো হয়, আগামী সোমবার থেকে সমস্ত বাজার খোলা হবে। বিক্রেতা ও শ্রমিকদের গঠনের পক্ষ থেকেই খাবার বিতরণ করা হবে নিয়মিত। নিরাপদ দূরত্ব বজায় রাখার ক্ষেত্রেও বিশেষ লক্ষ্য রাখবে সংগঠন।

news kolkatabengali

করোনা মোকাবিলায় লকডাউন থাকাকালীন যাতে কোনও অসুবিধা না পড়তে হয় মানুষকে সেই জন্য প্রশাসনকে নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। তিনি বলেন, সমস্ত দিকেই প্রশাসন তৎপর। এই পরিস্থিতিতে বারবার দেখা গিয়েছে পুলিশের নায়ক ও খলনায়ক দুই ভিন্ন দিক। অভিযোগ এসেছে একাধিক। আবার প্রশংসাও এসে পৌঁছেছে মুখ্যমন্ত্রীর কানে। তাই নরমে-গরমে এদিন মুখ্যমন্ত্রী প্রশংসা করেও কড়া বার্তা দিলেন পুলিশের উদ্দেশ্যে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here