kolkata bengali news

ডেস্ক: আসানসোলের পোলো গ্রাউন্ড থেকে তাহেরপুর যেখানেই গেছেন নিত্য নতুন নাম দিয়ে বাংলার মাটিতে এসে বিঁধেছেন দিদিকে৷ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী যত উন্নয়নের খতিয়ান দিয়েছেন, কেন্দ্রের প্রকল্পে দিদি স্টিকার লাগান বলে সব খারিজ করে দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী৷ মুখ্যমন্ত্রীর নয়া নামকরণও করেছেন মোদী৷ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে ‘স্টিকার দিদি’ আখ্যা দিয়েছেন৷ নির্বাচনী হাওয়ায় মোদী-দিদি তর্জা অব্যাহত৷ তৃণমূল বাংলার সরকার গড়বে বলে যখন দাবি তুলেছেন মুখমন্ত্রী তখন মোদী-অমিত শাহরা বাংলা থেকে দিদির ট্রান্সফরমার উপড়ে ফেলে পদ্ম ফুল ফোটানোর ডাক দিয়েছেন৷ বিগত কয়েকদিন দিদিকে নিশানা করে মোদীর আক্রমণে বেশ কিছু বাক্যবাণ আগেই থেকেই তৈরি করে রেখেছিলেন দিদি৷ ধীরে ধীরে যার বহিপ্রকাশ ঘটল বীরভূমের সিউড়ির জনসভায়৷ আক্রমণের শুরুতেই দিল্লির সরকারকে দুষে দিদি বললেন, মোদীবাবুরা মানুষ মেরে শ্মশানে পাঠান৷ বুধবার বোলপুরে গিয়ে বাংলায় দিদি কোনও কাজই করেননি বলে যখন একাধিক অভিযোগ তুলেছেন মোদী, বলেছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়দের সরকার শান্তিনিকেতনে গুন্ডা তৈরি করেছেম, তার একদিন পরেই রাঙামাটির দেশে সভা করতে গিয়ে মোদীকে আক্রমণ শানিয়ে দিদি বললেন, মোদীবাবু আপনি চেখে দেখেন না, নাকি কানে শোনেন না? মাথাটা পরীক্ষা করান বলেও এদিন নিজের প্রধান প্রতিপক্ষকে পরামর্শ দিলেন দিদি৷

এখানেই থামলেন না মুখ্যমন্ত্রী, আরও বললেন, আমরা ভগবানকে রাস্তায় বিক্রি করে দিই না৷ রামকৃষ্ণ না মোদী কে আগে জন্মেছেন দেশের প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে সেই প্রশ্নও ছুঁড়ে দিলেন দিদি৷ দিল্লি দখলের দাবি তুলে উত্তরপ্রদেশ, মধ্যপ্রদেশ, তামিলনাড়ু, রাজস্থান সর্বত্র শূণ্য পাবে বিজেপি, আর বাংলায় পাবে রসগোল্লা, একথা আরও একবার মনে করিয়ে দিলেন দিদি৷ শান্তিনিকেতনকে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের জন্মভূমি বলে আগেই সমালোচনার মুখে পড়েন নমো৷ এদিন আরও একবার মোদীকে দিদির কটাক্ষ, শান্তিনিকেতন রবীন্দ্রনাথের জন্মভূমি নয়, কর্মভূমি সেটা হয়তো মোদীবাবু ভুলে গিয়েছেন৷ মানুষের উদ্দেশ্যে এদিন আরও একবার বললেন বিজেপি যদি টাকা দিয়ে ভোট কিনতে চায়, টাকা নিয়ে তৃণমূলকে ভোট দেবেন, ঠিক যেমন মুড়ি খেয়ে বাটি উল্টে দেয়, উদাহরণ টেনে বলেন দিদি৷

মোদী সরকার ফের ক্ষমতায় এলে কি হবে তারও একপ্রস্থ ভবিষ্যতবাণী করে গেলেন দিদি, বললেন, মোদী আবার প্রধানমন্ত্রী হলে দেশে আগুন জ্বলবে, মানুষ না খেতে পেয়ে মরবে৷ তাই ওদের টলাতেই হবে৷ মোদীকে মনে করিয়ে দিদি আরও একবার বলেন, এটা আমার নির্বাচন নয়, তাই আমার কাজের খতিয়ান দেওয়ার প্রয়োজন নেই, আপনি পাঁচ বছরে কি করেছেন জবাব  দিন, না হলে বড় বড় কথা বলবেন না৷ বীরভূমের ৯৯ শতাংশ উন্নয়ন, জেলায় মাল্টি সুপারস্পেশালিটি হাসপাতাল, বিশ্ববাংলা বিশ্ববিদ্যালয়, ন্যাশনাল হাইওয়ে একে একে নিজের কাজের ক্ষতিয়ান যেমন তুলে ধরলেন তেমনই রাম মন্দির করতে না পারা নিয়ে মোদীকে আরও একবার ঠুকে গেলেন৷

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here