news bengali

মহানগর ওয়েবডেস্ক: দেশজুড়ে করোনা ভাইরাসের প্রকোপ যত বাড়ছে মানুষের পেটে লাথি পড়ার হারও যেন পাল্লা দিয়ে বেড়ে চলেছে। দেশ থেকে রাজ্য নির্বিশেষে কাতারে কাতারে মানুষ কাজ হারাচ্ছেন। বেকারত্ব সমস্যা উদ্বেগজনক আকার ধারণ করছে। এই সময় নাকি বেকারত্বের নিরিখে বাকি রাজ্যগুলি থেকে অনেকটাই ভালো জায়গায় রয়েছে পশ্চিমবঙ্গ। জাতীয় হারের তুলনায় বাংলায় বেকারত্বের হার অনেকটাই কম। শনিবার টুইট করে এই চমকপ্রদ দাবি করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। দাবির সপক্ষে অবশ্য তথ্য তুলে ধরেছেন দিদি।

দেশের আর্থিক পরিস্থিতি ও বেকারত্বের অবস্থা নিয়ে এর আগেও কেন্দ্রীয় সরকারকে একাধিকবার তোপ দেগেছেন তৃণমূল সুপ্রিমো। শনিবার সকালে করা তার টুইটে আরো একবার স্পষ্ট হয়েছে, তিনি যে কেন্দ্রকে এই ইস্যুতে ছেড়ে কথা বলবেন না। এদিন টুইট করে সেন্টার অফ মনিটরিং ইন্ডিয়ান ইকোনমির একটি রিপোর্ট তুলে ধরেছেন মমতা। সেই রিপোর্ট অনুযায়ী, করোনা ভাইরাসের জেরে লকডাউন হওয়ার পর গোটা দেশের মধ্যে বাংলায় বেকারত্বের হার অন্যতম কম।

এই রিপোর্ট লেখা হয়েছে, চলতি বছর জুন মাসে দেশে বেকারত্বের হার ছুঁয়েছে প্রায় ১১ শতাংশ। তবে গত মাসের থেকে এই হার কম। কিন্তু বেকারত্বের হার এখনও যথেষ্ট উদ্বেগজনক। এই তথ্য তুলে ধরে টুইতে মমতা লেখেন, করোনাভাইরাস ও আমফানের কারণে ক্ষয়ক্ষতি মোকাবেলায় ব্যাপক অর্থনৈতিক পরিকল্পনা আমরা করেছি যার প্রমাণ রাজ্যের বেকারত্বের হার সম্পর্কে সিএমআইই-এর তথ্যে প্রমাণ হয়ে গেছে।

টুইট করে মমতা লিখেছেন, জুন মাসে পশ্চিমবঙ্গের বেকারত্বের হার ৬.৫ শতাংশ। যেখানে গোটা ভারতের বর্তমান বেকারত্বের হার ১১.২ শতাংশ। বিজেপি শাসিত রাজ্য উত্তরপ্রদেশ এবং হরিয়ানার বেকারত্বের হার তুলে ধরে বাংলার সঙ্গে তুলনাও কার্যত সেরে ফেলেছেন নেত্রী। উত্তরপ্রদেশে বেকারত্বের হার ৯.৬ শতাংশ এবং হরিয়ানার বেকারত্বের হার ৩৩.৬ শতাংশ বলে তিনি লিখেছেন (সিএমআইই তথ্য অনুযায়ী)।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here