নিজস্ব প্রতিবেদক, কোচবিহার: উৎসবের রেশ পুরোপুরি কাটার আগেই ফের এক উৎসবের উদ্বোধনের জন্য এবার ২দিনের কোচবিহার জেলা সফরে আসছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তবে এই উৎসব নয় তথাকথিত কোন পুজো বা মেলা, নয় কোন সামাজিক অনুষ্ঠানও। এই উৎসব আদতে এক প্রেক্ষাগৃহ। কোচবিহার শহরের বুকে দীর্ঘদিন ধরে একটি বড় সরকারি প্রেক্ষাগৃহের নির্মাণের দাবি ছিল আমজনতা থেকে সংস্কৃতিপ্রেমী মানুষদের। সেই দাবি পূরণ করতেই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন দপ্তরকে নির্দেশ দেন কোচবিহার শহরে একটি বড় প্রেক্ষাগৃহ নির্মাণ করতে। তারপরেই ১৪কোটি টাকা খরচ করে ৫৭০আসন বিশিষ্ট একটি প্রেক্ষাজ্ঞ্রিহ নির্মীত হয় কোচবিহার শহরে। মুখ্যমন্ত্রী তার নাম রাখেন ‘উৎসব’। সেই প্রেক্ষাগৃহের উদ্বোধন করতেই আগামি ২৯শে অক্টোবর ২দিনের সফরে কোচবিহার আসছেন মুখ্যমন্ত্রী।

জেলা প্রশাসন সুত্রে জানা গিয়েছে আগামি ২৯তারিখ মুখ্যমন্ত্রী কোচবিহার এসে পৌঁছাবেন। সেদিনই উদ্বোধন হবে ‘উৎসব’ প্রেক্ষাগৃহের। পাশাপাশি সেদিনই ওই প্রেক্ষাগৃহে মুখ্যমন্ত্রী একটি প্রশাসনিক সভাও করবেন। পরেরদিন ৩০ অক্টোবর কোচবিহার শহরের রাসমেলা মাঠে মুখ্যমন্ত্রী একটি জনসভাও করবেন। সেদিনই তার কলকাতায় ফিরে আসার কথা। মুখ্যমন্ত্রীর এই সফরকে ঘিরে কোচবিহার জেলা প্রশাসনের ব্যস্তাতা শুরু হয়ে গিয়েছে। সুত্রে খবর যে সব আধিকারিকরা পুজা ছুটিতে গিয়ে ছিলেন তাদের ছুটি বাতিল করে দেওয়া হয়েছে। মঙ্গলবার জেলা শাসক দপ্তরে মুখ্যমন্ত্রীর সফরকে ঘিরে উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন মন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষের নেতৃত্বে একটি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে কোচবিহার জেলা পুলিশ সুপার ডঃ ভোলানাথ পান্ডে, অতিরিক্ত জেলা শাসক জ্যোতির্ময় তাঁতি সহ অন্যান্য আধিকারিকরা উপস্থিত ছিলেন। বৈঠক শেষে এদিন ‘উত্সব’ প্রেক্ষাগৃহ পরিদর্শন করেন মন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষ সহ প্রশাসনিক আধিকারিকরা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here