ডেস্ক: নবান্নর সমস্তরকম কর্মসূচি ছেঁটেই দুর্ঘটনায় নিহতদের পরিবারের পাশে দাঁড়াতে মুর্শিদাবাদ ছুটলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। একই সঙ্গে রাজ্য সরকারের তরফে এই দুর্ঘটনায় নিহতদের পরিবারকে ৫ লক্ষ টাকা ক্ষতিপূরণ দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছেন তিনি। এছাড়াও কম আহতদের ৫০ হাজার এবং গুরুতর আহতদের ১ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা ক্ষতিপূরণ দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী।

আজ সকালেই বালিঘাট ব্রিজের রেলিং ভেঙে ভৈরব নদীতে উল্টে যায় যাত্রীবোঝাই বাস। কয়েক ঘণ্টা কেটে গেলেও বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনী না আসায় জনতার ক্ষোভের মুখে পড়ে পুলিশ। আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয় পুলিশের গাড়িতে, চলে ভাঙচুর। পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে অক্ষম পুলিশ বিরুদ্ধে জনতা বিক্ষোভ দেখালে রীতিমতো রণক্ষেত্রের চেহারা নেয় দৌলতাবাদ। বর্তমানে ডুবুরিরা জলে নেমে বাসটিকে চিহ্নিত করার চেষ্টা করছে।

দুর্ঘটনার পর পরিবহণমন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী সংবাদমাধ্যমের কথা বলতে গিয়ে জানান, কুয়াশা মাখা ভোরে ব্রিজে ওঠার মুখে একটি ট্রাককে পাশ কাটাতে গিয়েছিল যাত্রীবাহী বাসটি। তাতে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলেন চালক। সোজা ধাক্কা মারে সেতুর রেলিংয়ে। কিছু বুঝে ওঠার আগেই রেলিং ভেঙে বাসটি পড়ে যায় নদীতে। মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে মুর্শিদাবাদ যাচ্ছেন পরিবহণ মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারীও।

আজ সকালে নেতাজি ইন্ডোর স্টেডিয়ামে রাজ্য সরকারের একটি অনুষ্ঠান থেকে ক্ষতিপূরণ ঘোষণা করেন মুখ্যমন্ত্রী। এই দুর্ঘটনার খবর পেয়ে সকাল থেকেই উদ্বিগ্ন ছিলেন মমতা। নবান্নে একাধিক কর্মসূচি থাকলেও সেসব ফেলে দুপুর ১টা ৩০ নাগাদ হেলিকপ্টারে করে মুর্শিদাবাদ উড়ে যান মুখ্যমন্ত্রী।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here