mamata banerjee

মহানগর ওয়েবডেস্ক: ‘অভূতপূর্ব সংকট’। রাজ্যের বর্তমান পরিস্থিতিকে এভাবেই ব্যাখ্যা করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এদিন নবান্নে সাংবাদিক বৈঠকে তিনি জানিয়ে দেন, ‘পরিস্থিতি উন্নতি না হওয়া পর্যন্ত লকডাউন মানতেই হবে।’ একই সঙ্গে তাঁর বক্তব্য, কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে লকডাউন নিয়ে স্বচ্ছ নির্দেশিকা চাওয়া হচ্ছে। কেন্দ্রের স্বচ্ছ নির্দেশিকা ছাড়া সমস্ত দোকান খোলার সিদ্ধান্ত নেওয়া যাচ্ছে না বলে দাবি করেন মমতা।

মমতার কথায়, প্রত্যেককে মাস্ক ব্যবহার করতে হবে। বিশ্বের অনেক দেশ মে মাস পর্যন্ত লকডাউন বাড়িয়েছে। বিশেষজ্ঞ কমিটিও রাজ্যে মে মাস পর্যন্ত লকডাউনের সুপারিশ করেছে। লকডাউন মেনে চিকিৎসকরাও চেম্বার খুলতে পারেন বলে জানান মুখ্যমন্ত্রী। হাসপাতালগুলিকে তাঁর নির্দেশ, রোগীদের রোগীদের ফেরানো যাবে না।

এদিন গ্রিন জোনে বেশ কিছু ছাড় দেওয়ার কথাও ঘোষণা করেন মমতা। যেই জেলাগুলি সংক্রমণ মুক্ত সেই এলাকাগুলিকে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখেই ছোট শিল্প এবং ছোট বাস চালানোর অনুমতি দেন তিনি। তবে ২০ জনের বেশি যাত্রী নেওয়া যাবে না। এবং গ্রিন জোনের মধ্যেই বাস চালাতে হবে বলে জানিয়ে দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। পান বা চায়ের দোকান থেকে মাল নিয়ে বাড়িতে খেতে পারে। দোকানে খাওয়া যাবে না। ভিড় করা যাবে না বলে জানান মমতা। একই সঙ্গে নির্মাণ কার্য-সরকারি ও বেসরকারি ক্ষেত্রেই কাজ করতে পারবে। লকডাউন মেনে নিয়ম মেনে কাজ করতে হবে, তবেই ছাড় দেওয়া হবে।

তিনি আরও জানিয়েছেন, সেলুন, বিউটি খুললে সংক্রমণ ছড়ানোর সম্ভাবনা আছে, তাই ওটা খুলবে না এখন।
কনটেনমেন্ট এরিয়া এভাবেই চলবে। ওটা পুরো লকডাউন থাকবে। কিছুই করতে পারব না। জানান মমতা। পরশু দিন লিখিত সরকারি বিজ্ঞপ্তি জারি করবে নবান্ন। তারপর সোমবার থেকে এটা লাগু হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here