news bengali kolkata

মহানগর ওয়েবডেস্ক:  গত বুধবার বিকেল থেকেই তাণ্ডব চালিয়ে বাংলাদেশের দিকে অগ্রসর হয়েছে দানব ঘুর্নিঝড় আমফান। যার প্রভাবে রাজ্যে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। তাই গতকাল রাতে সাংবাদিক সম্মেলনে বসে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়
জানান, ‘নবান্নের বিল্ডিংয়ের অনেক ক্ষতি হয়েছে। ভেঙে গিয়েছে অর্ধেক বিল্ডিং। এখানেই যদি এই অবস্থা হয়, তাহলে আপনারা কল্পনা করতে পারছেন, সারা বাংলাজুড়ে কী তাণ্ডব হয়েছে!’

একেই তো মারণ ভাইরাসের ত্রাস তার মাঝেই এই প্রাকৃতিক দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্ত পশ্চিমবঙ্গ। সেই বিষয়ে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘একদিকে কোভিড দুর্যোগের জন্য পরিযায়ী শ্রমিকরা আসছে আর অন্যদিকে ঝড়ের দুর্যোগ। সাংঘাতিক কঠিন পরিস্থিতির মোকাবিলা করছি আমরা। আমি আজ নিজে উপলব্ধি করলাম। উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগনা ধ্বংস হয়ে গিয়েছে। টোটালটাই ধ্বংস হয়ে গিয়েছে। ব্রিজ, রাস্তা, ঘরবাড়ি সবটা। সব খবর তো এখনও পাইনি। বিডিও, এসডিও সকলে আছেন। যা খবর পাচ্ছি, ১০-১২ জনের মৃত্যুর খবর পেয়েছি। বেশিরভাগই মানুষই গাছ ভেঙে মারা গিয়েছে। ৫ লক্ষ মানুষকে সরাতে পেরেছি। পুরোটা ক্যালকুলেট করতে পারিনি। বিদ্যুত সংযোগ নেই। স্তম্ভিত, খুব খারাপ লাগছে। মাস ছয়েক আগে বুলবুল থেকে বাঁচাতে টোটালটা মেরামত করে দিয়েছিলাম’।

তবে ‘আমফান’ এর মোকাবিলায় যথেষ্ট দ্রুততার সঙ্গে কাজ করেছে বর্তমান সরকার, এও স্পষ্ট করে জানিয়ে দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন, ‘মাত্র একদিনের নোটিসে আমরা ৫ লক্ষ মানুষকে সরিয়ে নিতে পেরেছি। আমরা যদি এই বিষয়টিকে সিরিয়াসলি না নিতাম তাহলে জানি না কত লক্ষ মানুষ মারা যেত! ক্ষয়ক্ষতির খতিয়ান জানতে আরও ৩-৪ দিন লাগবে।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here