ডেস্ক: একদিকে ভারত বনধ নিয়ে উত্তাল গোটা দেশ। দেশজুড়ে এই অস্বস্তিকর পরিস্থিতির মাঝেই এক নয়া সিদ্ধান্ত নিল ভারত-বাংলাদেশ সরকার। ত্রিপুরা থেকে বাংলাদেশে রেল যোগাযোগের নতুন পথ প্রশস্ত করতে এদিন ভিডিও কনফারেন্সে বসেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী, বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেব এবং ভারতের বিদেশমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ। জানা গিয়েছে, ত্রিপুরার রাজধানী আগরতলা থেকে বাংলাদেশের আখাউড়ার উদ্দেশ্যে ছুটবে এই ট্রেন।

আগরতলা থেকে আখাউড়া রেল যোগাযোগের দাবি দীর্ঘদিনের। বর্তমানে বাংলাদেশ থেকে ভারতে রেল যোগাযোগের অন্যতম মাধ্যম কলকাতা-ঢাকা মৈত্রী এক্সপ্রেস। ত্রিপুরার বিধানসভা নির্বাচনের সময়েও বিজেপির অন্যতম প্রতিশ্রুতি ছিল আগরতলা থেকে আখাউড়া রেল পরিষেবা। দীর্ঘদিনের সেই প্রতিশ্রুতি পূরণ করতে এদিন ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে বৈঠকে বসেন ওই ৫ জন ভিভিআইপি। বাংলাদেশের পাশের রাজ্য হিসাবে রাখা হয় পশ্চিমবঙ্গকেও। সোমবার ঠিক ১ টা নাগাদ নবান্নে এই বৈঠকে বসেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের সামনে উপস্থিত হয়ে মমতা বলেন, আগরতলা থেকে আখাউড়া রেল যোগাযোগ চালু করার জন্য এই বৈঠক সব দিক থেকেই সফল হয়েছে। একইসঙ্গে বিদ্যুৎ নিয়েও আলোচনা হয়েছে। রাজ্যের তরফে এই মুহূর্তে বাংলাদেশকে ৫০০ মেঘাওয়ার্ট বিদ্যুৎ বিক্রি করা হয়। প্রধানমন্ত্রী যদি সম্মতি দেন তবে আমরা আরও হাজার ওয়াট বিদ্যুৎ দিতে প্রস্তুত বাংলাদেশকে।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here