মহানগর ডেস্ক: আজ ১০০ বছরে পদার্পন করল রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়। আর বিশ্বভারতীর শতবর্ষে নাকি আমন্ত্রণই জানানো হয়নি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে। সাংবাদিক বৈঠকে এমনই অভিযোগ করলেন রাজ্যের মন্ত্রী ব্রাত্য বসু। যা নিয়ে রীতিমতো দানা বেঁধেছে বিতর্ক।

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার বিশ্বভারতীর শতবর্ষ অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালি যোগ দেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। উপস্থিত ছিলেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড় ও কেন্দ্রীয় শিক্ষামন্ত্রী রমেশ পোখরিয়াল। ব্রাত্যর অভিযোগ, সেখানে আমন্ত্রণই পাননি মমতা। এরই পরিপ্রেক্ষিতে ‘রাজনীতি’কে হাতিয়ার করে পাল্টা আসরে নেমে পড়েছে বিজেপি। বিজেপি আইটি সেলের প্রধান অমিত মালব‍্য টুইট করে ‘পিসির ছোট মানসিকতার’ বহিঃপ্রকাশ বলে মুখ্যমন্ত্রীকে কটাক্ষ করেছেন। টুইটারে তিনি লেখেন, “৪ ডিসেম্বর বিশ্বভারতী মুখ্যমন্ত্রীকে আমন্ত্রণ জানিয়েছিল। কিন্তু পিসির জন্য গুরুদেবের ঐতিহ্যের থেকে রাজনীতিটা বেশি গুরুত্বপূর্ণ। এর আগে কোনও মুখ্যমন্ত্রী এভাবে রবীন্দ্রনাথের বিশ্বভারতীকে অপমান করেননি।”

প্রথম থেকেই চিঠি বিতর্ক নিয়ে ধোঁয়াশা তৈরি হয়েছিল। এরপরই জল্পনা উঠতে শুরু করেছিল মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে সত্যিই কি অনুষ্ঠানের কোনও আমন্ত্রণ এসে পৌঁছায়নি। নাকি অন্য কোনও ‘ত্রুটি’র কারণে মমতা এদিনের অনুষ্ঠানে থাকলেন না।

বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের দাবি, মুখ্যমন্ত্রীকে আমন্ত্রণ করা হলেও তাঁর তরফে কোন প্রাপ্তি স্বীকার করা হয়নি। বিশ্বভারতীর প্যাডে লেখা ৪ ডিসেম্বরের একটি চিঠি ইতিমধ্যেই প্রকাশ্যে এসেছে। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে উদ্দেশ্য করেই লেখা হয়েছে এই চিঠি। যদিও, এরই পরিপ্রেক্ষিতে মমতার মন্ত্রীর প্রশ্ন, “চিঠির কোন প্রাপ্তি স্বীকার করা হয়েছিল কি? ওই চিঠির প্রাপ্তি স্বীকারের নথি আছে কি? উপাচার্য নিজেই সই করে নিজের কাছে ওই চিঠি রেখে দিয়েছিলেন নাকি? মুখ্যমন্ত্রীকে আমন্ত্রণ জানানোর পদ্ধতি এটা? আগের দিন রাতে বলাটা কোন নিয়ম? তিনি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী।”

যদিও ব্রাত্য বসুর এ মন্তব্য প্রসঙ্গে রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড় বিশ্বভারতীতে দাঁড়িয়ে বলেন, “বিশ্বের দরবারে বিশ্বভারতীর একটা আলাদা মর্যাদা। তাই এই বিশ্বভারতীর সঙ্গে জড়িয়ে কোনও কথা বলার আগে তা ভালভাবে খোঁজ নেওয়া দরকার।”

সবশেষে বিশ্বভারতীর অনুষ্ঠানে মুখ্যমন্ত্রীকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে না হয়নি, তা নিয়ে বৃহস্পতিবার সকাল থেকে শুরু হল জোর চর্চা। তার আগে অবশ্য বিশ্বভারতীর শতবর্ষ উপলক্ষে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের গান উদ্ধৃত করে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের টুইট, ‘‘বিশ্বসাথে যোগে যেথায় বিহারো, সেইখানে যোগ তোমার সাথে আমারও’’।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here