kolkata news

 

নিজস্ব প্রতিনিধি: গতকাল মালদায় সাংবাদিক সম্মেলনে বলেছিলেন তিনি প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি লিখবেন। সেই কথামতো আজ করোনার ভ্যাকসিনের দামের তারতম্য নিয়ে প্রতিবাদ জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে চিঠি দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। ভ্যাকসিনের দাম এক রাখার জন্য প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ দাবি করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। চিঠিতে তিনি অভিযোগ করেছেন, কেন্দ্রীয় সরকার যে টিকা নীতি গ্রহণ করেছে তা বৈষম্যমূলক এবং জনবিরোধী। কেন্দ্রীয় সরকার ১৫০ টাকায় ভ্যাকসিন কিনবে। অথচ তা রাজ্য সরকারকে কেন ৪০০ টাকায় কিনতে হবে, তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন মুখ্যমন্ত্রী।

তাঁর বক্তব্য, কেন্দ্রের এই সিদ্ধান্ত যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামোর পরিপন্থী। রাজ্য সরকার গরিব মানুষ এবং যুবকদের জন্য ভ্যাকসিন কিনবে। সুতরাং কেন্দ্রের এই নীতি গরিব মানুষ এবং তরুণ প্রজন্মের বিরোধী। প্রধানমন্ত্রীকে তিনি লিখেছেন, এত চড়া দামে ভ্যাকসিন কেনা তো দূরের কথা, অতীতে কখনও গণটিকাকরণের ক্ষেত্রে রাজ্যকে টিকা কিনতে বলেনি কেন্দ্র। বেসরকারি হাসপাতালের জন্য ৬০০ টাকা টিকার দাম বেঁধে দেওয়ার প্রতিবাদ জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। প্রত্যেক দেশবাসীকে বিনামূল্যে ভ্যাকসিন দেওয়ার দাবি জানিয়েছেন তিনি।

উল্লেখ্য, পুনের সেরাম ইনস্টিটিউট করোনা টিকা কোভিশিল্ডের প্রতি ডোজ রাজ্য সরকারকে ৪০০ টাকায় বিক্রি করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। পাশাপাশি বেসরকারি হাসপাতালকে সেই ডোজ ৬০০ টাকায় বিক্রি করলেও সেরাম কেন্দ্রীয় সরকার তা ১৫০ টাকায় বিক্রি করবে বলে জানা গিয়েছে। আর এই দামে তারতম্যের জন্য ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। আজ মালদার রতুয়ার সভা থেকে মুখ্যমন্ত্রী বলেছেন, এক দেশ, এক দল, এক নেতার কথা বলেন যারা, তারাই টিকার দাম আলাদা আলাদা করছেন কেন? কেন্দ্র কিনলে ১৫০ টাকা, রাজ্য কিনলে ৪০০ টাকা আর বেসরকারি হাসপাতালগুলির জন্য দাম ৬০০ টাকা। এটা হচ্ছে কী? এই জরুরি পরিষেবা নিয়ে ব্যবসা করা উচিত নয়। এই প্রতিষেধক বিনামূল্যে দেওয়া উচিত কেন্দ্রের। এই প্রসঙ্গে আবার তিনি পিএম কেয়ারসের কথা উল্লেখ করেন। প্রশ্ন তুলে বলেন, কোথায় গেল এত টাকা? সেই টাকা দিয়ে প্রতিষেধক কিনে দিলে করোনা এতটা বাড়ত না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here