kolkata news
Parul

নিজস্ব প্রতিনিধিতৃণমূলের সভা। অথচ বামেদের সম্পর্কে একটি শব্দও খরচ করলেন না তৃণমূল নেত্রী! যা থেকে স্পষ্ট বাম নয়, বিজেপিই এখন তাঁর প্রধান শত্রু। এদিনের সভায় কংগ্রেস সম্পর্কেও একটা কথা বলেননি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। যা থেকে পর্যবেক্ষকদের ধারণা, তৃতীয় ফ্রন্ট গঠনে কংগ্রেসের সমর্থন জরুরি। তাই নেত্রী স্পিকটি নট!

ads

১৯৯৩ সালের ২১ জুলাই মহাকরণ অভিযানের ডাক দেন তৎকালীন যুব কংগ্রেস নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বাম সরকারের গুলিতে সেদিন নিহত হন ১৩ জন আন্দোলনকারী। সেই থেকেই ২১ জুলাই দিনটি মমতা পালন করেন শহিদ দিবস হিসেবে। কংগ্রেস থেকে বেরিয়ে পরে তৃণমূল গড়েন মমতা। ২০১১ সালে রাজ্যের ক্ষমতায় আসে তাঁর দল। তার পর থেকে জৌলুস বেড়েছে একুশে জুলাইয়ের সভার। এক সময় সভা হত ধর্মতলা চত্বরে। এখন হয় ব্রিগেডে। তবে ৯৩ সালের পর থেকে এ পর্যন্ত যতবার শহিদ দিবস পালিত হয়েছে, প্রতিবারই সিপিএমকে তুলোধোনা করেছেন মমতা। দিন যত গড়িয়েছে, সে আক্রমণের ঝাঁঝ তত বেড়েছে। বাম সূর্য অস্ত যাওয়ার পর ক্রমেই ক্ষইতে থাকে সংগঠন। ফলে সময়ের সঙ্গে সঙ্গে মমতার বাম আক্রমণের অস্ত্রও হয়েছে দুর্বল।

এবার একুশের ভার্চুয়াল সভায় বামেদের সম্পর্কে একটি শব্দও খরচ করেননি তৃণমূল নেত্রী। এর কারণ একুশের বিধানসভা নির্বাচনে ধুয়ে-মুছে-সাফ হয়ে গিয়েছেন বামেরা। বিধানসভায় তাঁদের একজন প্রতিনিধিও নেই। ওয়াকিবহাল মহলের মতে, ফুরিয়ে যাওয়া বামেদের চেয়ে আড়েবহরে বাড়তে থাকা বিজেপিই যে তাঁর মাথাব্যথার কারণ, তা এদিন বুঝিয়ে দেন তৃণমূল নেত্রী। তবে আরও একটি মতও রয়েছে। সেটি রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের মত। তাঁদের মতে, তৃতীয় ফ্রন্ট গড়তে হলে দিল্লিতে বামেদের সাহায্যও নিতে হবে তৃণমূলকে। সেই কারণেই বাম সম্পর্কে এদিন বোধহয় স্পিকটি নট রইলেন তৃণমূল সুপ্রিমো!   

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here