ডেস্ক: উত্তরবঙ্গ সফরে গিয়ে আক্রমণের মেজাজ আরও বাড়িয়ে ২০১৯-এ বিজেপিকে ক্ষমতাচ্যুত করার ডাক দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। শিলিগুড়িতে ছাত্র যুব সমাবেশে দাঁড়িয়ে কেন্দ্রীয় সরকারকে তুলোধোনা করে ছাড়লেন তিনি। একই সঙ্গে কংগ্রেস-সিপিএমকেও কটাক্ষ করেন তিনি। ২০১৯ সালে লোকসভা নির্বাচনে বাংলায় যে তিনি এক ইঞ্চি জমিও কাউকে ছাড়তে রাজি নন সেকথাও জানিয়ে দিলেন দলনেত্রী।

একনজরে দেখে নিন আজকের সভায় মুখ্যমন্ত্রীর বক্তব্যের কিছু অংশ…

  • সমাজের দায়িত্ব নেবে তৃণমূল, দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদ করে তৃণমূল, মানুষের কথা বলে তৃণমূল।
  • বিজেপি এখন বলছে, আমরা দু’বছর ধরে বিনামূল্যে স্বাস্থ্য পরিষেবা দেই। স্বাস্থ্যসাথীর আওতায় বহু মানুষ আছেন।
  • সাংবাদিকদের জন্য পেনশনের ব্যবস্থা করা হবে।
  • ‘রূপশ্রী’ করেছি, গরীব পরিবারের মেয়েদের বিয়ের জন্য ২৫ হাজার টাকা দেব।
  • কৃষি খাজনা মকুব করেছি, মিউটেশন ফ্রি করেছি। কৃষকের বিমা করেছি, কৃষক পরিবারের পাশে আছি।
  • তৃণমূলকে বদনাম করছে বিজেপি, জাগো বাংলা নিয়ে ভুল ছবি দিয়েছে বিজেপি।
  • কারখানা বন্ধ করে আন্দোলন নয়, কারখানার মালিকদের সঙ্গে আলোচনা সমস্যার সমাধান করুন।
  • পঞ্চায়েত নির্বাচনে প্রতি জেলায় ও ব্লকে লড়াই করুন, ওরা যেন দাঁড়ানোর জায়গা না পায়।
  • ৭ মার্চ উত্তরবঙ্গের জেলায়-জেলায় মহিলাদের র‍্যালি, ৬-৭ মার্চ ব্লকে-ব্লকে মহিলাদের র‍্যালি।
  • বিজেপির মন্ত্ৰীরা বাক্স নিয়ে উত্তরবঙ্গে আসেন। সেই বাক্সে টাকা না কাগজ আছে তা সাংবাদিক ও সাধারণ মানুষ জানে।
  • সবাইকে নিয়ে চলে তৃণমূল, ২-১ জনকে সঙ্গে নিয়ে চলে না।
  • রান্নার গ্যাস ও পেট্রোলের মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদ করতে হবে।
  • কেন্দ্রের বঞ্চনার শিকার বাংলা, তৃণমূলের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে মোদী সরকার। দেশের সব থেকে স্বচ্ছ দল তৃণমূল।
  • বন্ধ চা বাগান খোলার কথা বলেছিল, একটাও চা বাগান খুলতে পারেনি বিজেপি।
  • কোচবিহারে এয়ারপোর্ট করছি, বালুরঘাটেও এয়ারপোর্ট করব।
  • রাজবংশী ভাষাকে সরকারি ভাষা হিসেবে স্বীকৃত দেব।
  • আগে ছিল সিপিএমের বিরুদ্ধে লড়াই, এখন মানুষকে খেতে দেওয়ার লড়াই।
  • দাঙ্গাবাজদের সমর্থন করবেন না। কংগ্রেসের অবস্থা হলনা ঘরকা না ঘাটকা। কাজ করছে না, শুধু বিবৃতি দিচ্ছে।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here