যেতে যেতে পথে হল দেখা, খোশ মেজাজে মোদীর স্ত্রীর সঙ্গে গল্প জুড়লেন মমতা

0
1826

মহানগর ওয়েবডেস্ক: পাওনা বুঝে নিতে মোদীর সঙ্গে সাক্ষাতের উদ্দেশে দিল্লির উদ্দেশ্যে রওনা দিয়েছেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। পথে যেতে যেতে কলকাতা বিমানবন্দরে দেশের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর স্ত্রী যশোদাবেনের সঙ্গে সাক্ষাৎ করলেন মমতা। শুধু সাক্ষাৎই নয়, পুজোর আগে তাঁর হাতে উপহার স্বরূপ একটি শাড়িও তুলে দেন তিনি। বেশ কিছুক্ষণ তাঁর সঙ্গে একান্তে কথাও বলেন তিনি।

মোদীর জন্মদিন উপলক্ষ্যে সোমবার আসানসোলের কল্যানেশ্বরী মন্দিরে পুজো দেন মোদীর স্ত্রী। এরপর এদিন ফিরে যাওয়ার জন্য কলকাতা বিমান বন্দরে অপেক্ষা করছিলেন যশোদাবেন। একইসঙ্গে মঙ্গলবার একাধিক বিষয়ে দেশের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে কথা বলতে কলকাতা বিমানবন্দর থেকে দিল্লির বিমান ধরেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তবে যাওয়ার আগে বিমানবন্দরে যশোদাবেনের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে যান তিনি। শুধু তাই নয় মঙ্গলবার নরেন্দ্র মোদীর ৬৯ তম জন্মদিন। সেখানে রাজনৈতিক দুরত্বকে দূরে সরিয়ে মোদীকে বাংলায় লিখে শুভেচ্ছাবার্তা জানান মমতা। পাল্টা মমতাকে ধন্যবাদ জানান নরেন্দ্র মোদীও।

পাশাপাশি, একদিকে সিবিআই হন্যে হয়ে খুঁজছে প্রাক্তন নগরপাল রাজীব কুমারকে। অন্যদিকে আচমকাই ‘রাজ্য সরকারের দাবি-দাওয়া’ নিয়ে দিল্লি উড়ে গিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আপাতভাবে এই দুই ঘটনার কোনও যোগসূত্র নেই, কিন্তু কোথাও গিয়ে একটা সন্দেহের গন্ধ ঠেকেছে রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মনে। তবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছেন, ‘আমি তো ৩৬৫ দিনই কলকাতায় থাকি। কোথাও তো যাই না। কিন্তু যেহেতু একটা দায়িত্বে আছি, রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, সংসদ সব দিল্লিতে রয়েছে; তাই রাজ্যের কাজে কখনও কখনও যেতে হয়। এবার আমি যাচ্ছি কারণ রাজ্যের ব্যাপারে আমার কিছু টাকা পাওনা আছে। এছাড়া ব্যাঙ্ক, রেল, এয়ার ইন্ডিয়া, বিএসএনএল এগুলোতে অনেক প্রবলেম আছে। সুযোগ পেলে এদের কথাগুলো বলতে পারব। আমার রাজ্যের নাম পরিবর্তনের ব্যাপারটাও আছে। এ নিয়ে এত আলোচনার কী আছে।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here