kolkata bengali news

ডেস্ক: সকালে নরেন্দ্র মোদীর একটা টুইট। তাতেই তটস্থ দেশবাসী। তবে দীর্ঘ কয়েক ঘণ্টার টেনশনের পর স্বস্তি! নাহ, এবার আর কোনও কিছু ব্যান-ট্যান করছেন না মোদী। বরং জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণে স্যাটেলাইট ধ্বংসকারী মিসাইলের সফল উৎক্ষেপণের কথা ঘোষণা করেন প্রধানমন্ত্রী। তবে প্রধানমন্ত্রীর এদিনের সকালের টুইট দেখে একধাক্কায় সবারই মনে পড়ে গিয়েছিল নোটবন্দির সেই অভিশপ্ত সন্ধের কথা। যেদিন জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণ দেওয়ার সময় নোটবন্দি করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন মোদী।

এদিন সকালের ঘটনা নিয়ে মুখ খোলেন মুখ্যমন্ত্রীও। লোকসভা ভোটের আগে নির্বাচনী ইস্তেহার প্রকাশ করতে কালীঘাটে সাংবাদিক সম্মেলন ডেকেছিলেন তৃণমূল কংগ্রেস নেত্রী। সেখানে ইস্তেহার প্রকাশের পাশাপাশি মোদীর এদিনের ঘোষণাকেও কটাক্ষ করেন মমতা। এদিন সকালে টুইট করে মোদী বলেছিলেন, বেলা সাড়ে ১১টার পর দিয়েই জাতির উদ্দেশ্যে ‘বিশেষ ঘোষণা’ নিয়ে আসবেন তিনি। তারপর থেকেই বিভিন্ন মহলে জল্পনা ও জলঘোলা শুরু হয়ে গিয়েছিল। কী ঘোষণা নিয়ে আসছেন প্রধানমন্ত্রী?

মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ডিআরডিও এই কৃতিত্ব ২০১২তেই হাসিল করেছে। কিন্তু মোদী একটা সফল উৎক্ষেপণ করে পুরো ক্রেডিট নেওয়ার চেষ্টা করছেন। এমনই অভিযোগ মমতার। বিশেষ করে জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণ দেওয়ার আগে মোদীর টুইট এবং তারপর তৈরি হওয়া সাপেন্সকে নিয়ে ঠাট্টার সুরে কথা বলতে শোনা যায় তাঁকে। মমতা বলেন, আমি ভাবলাম কী না কী হবে। সকালে ফালতু সব পাবলিসিটি নিয়ে নিল। ভাবছিলাম বলবে, প্রধানমন্ত্রী হব না আর বলবে কিনা। আডবাণীকে প্রধানমন্ত্রী বানিয়ে দেবে কিনা।

প্রসঙ্গত, এদিন সাংবাদিক বৈঠকে লালকৃষ্ণ আডবাণী প্রসঙ্গেও মুখ খোলেন মমতা। গতকালই অবশ্য তাদের টিকিট না পাওয়ার বিষয় নিয়ে দুঃখ প্রকাশ করেন মুখ্যমন্ত্রী। এদিন মমতা জানান, আডবাণীর সঙ্গেও ফোনে কথা হয়েছে তাঁর। মমতার ফোন পেয়ে খুশি হয়েছিলেন আডবাণীও। ফোন পেয়ে ভালো লেগেছে, মমতাকে নাকি এমনটাই জানিয়েছেন বাজপেয়ীর ‘বাদ পড়া’ লৌহপুরুষ।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here