modi-mamata

ডেস্ক: দিদি-মোদী সেটিং৷ ভরা ভোট বাজারে এই তত্ত্বকে উস্কে দিলেন স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র ভাই দামোদর দাস মোদী৷ বুধবার বলিউড তারকা অক্ষয় কুমারকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি অকপটে জানান, বছরে দু’একবার তৃণমূল কংগ্রেস সুপ্রিমো তথা বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায় ওরফে দিদি তাঁকে বাংলার মিষ্টি ও কুর্তা-পাজামা উপহার দেন৷ এমনকী বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছ থেকেও বাংলা মিষ্টি উপহার পান বছরে অন্তত একবার বলে জানান মোদী৷ সঙ্গে টিপ্পনী, হাসিনার দেখাদেখি মমতাও তাঁকে মিষ্টি পাঠান৷

এদিন সাক্ষাৎকারে পুরো ফুরফুরে মেজাজে মোদীকে দেখা গেল৷ তিনি অক্ষয় কুমারকে অনেক অজানা কথা অকপটে বললেন৷ তাঁকে একেবারে অন্য মেজাজে দেখা গেল তাঁর বক্তব্যর সারমর্ম রাজায় রাজায় যুদ্ধ হলেও বিরোধীদের সঙ্গে তাঁর মধুর সম্পর্ক রয়েছে৷ পাশাপাশি অবশ্য তিনি বলেত ভোলেন না যে ভোটের মাঝখাএন তাঁর এমন কথা বলা ঠিক নয়৷ এবার লোকসভা ভোটে হিট হল মমতা-মোদীর তরজা৷ দুইজনেই দুজনের বিরুদ্ধে তোপ দাগেন৷ তা অনেকসময় সবরকমের শালীনতাকে ভেঙে খান খান করে দেয়৷ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বাংলায় এসে ক্ষমতায় ফিরলে মমতাএক জেলে ভরার হুমকি দেন৷ অন্যদিকে মমতা প্রধানমন্ত্রীকে হিটলারের নাতি থেকে শুরু করে অশালীন কথা বলেন নিয়ম করে প্রায় রোজ৷ বিজেপি হঠাও, দেশ বাঁচাও -এর স্লোগান মমতাই তুলেছেন৷

অন্যদিকে নারদা-সারদা নিয়ে মমতাকেও নিয়মিত নির্বাচনী জনসভায় রোজ সমালোচনায় বিদ্ধ করেন নরেন্দ্র মোদী ও তাঁর দলবল৷ রাজায়-রাজায় যুদ্ধ হয়, উলুখাগড়ার প্রাণ যায়৷ এই আপ্তবাক্যটিকে বুধবার সীলমোহর দিলেন স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী৷ অক্ষয় কুমার বিরোধীদের সঙ্গে তাঁর কেমন সম্পর্ক জানতে চেয়েছিলেন৷ জবাবে বলিউডের ‘খিলাড়ি’কে মোদীকে অকপটে জানান, লোকে যা ভাবে আসলে তা নয়৷ তবে যা বললেন না তা হল উলুখাগড়ারাই চিরকাল নিজেদের মধ্যে লড়াই করে মরে, নেতা-নেত্রীরা নন৷ তাদের মধ্যে ভেতরে ভেতরে মধুর সম্পর্ক থাকে বলেই দাবি করেন তিনি৷

এই প্রসঙ্গে অক্ষয়কে তিনি একটা গল্প শোনালেন৷ তখন তিনি গুজরাতের মুখ্যমন্ত্রী, একবার কোনো কাজে সংসদে গিয়েছিলেন৷ সেখানে কংগ্রস নেতা গুলাম নবি আজাদের সঙ্গে দেখা হয়৷ তাঁরা দুজন একসঙ্গে খেতে খেতে আড্ডা মারছিলেন৷ তা দেখে আশ্চর্য হয়ে যায় উপস্থিত সাংবাদিকরা৷ তখন নাকি গুলাম নবি বলেছিলেন আপনারা বাইরে থেকে যা দেখেন আসলে তা নয়, আমরা সবাই একটা পরিবারের মতো৷ গুলামের এই কথাটা মোদীর বেশ মনে ধরেছে বেল জানান তিনি৷ মোদী জানান তিনি প্রতিবছর তিনি তাঁর বিরোধী বন্ধুদের সঙ্গে বছের দু চারবার একসঙ্গে খাওয়া-দাওয়া করেন৷ প্রচুর আড্ডাও মারেন৷ ভোটের শুরুর আগে থেকে বহুদিন ধরে বাংলায় কংগ্রেস, বামেরা বলে আসছেন মোদী-দিদি তলায় তলায় অশুভ আঁতাত করেছেন৷ তাঁদের ভোটবাজারে জনপ্রিয় স্লোগান মোদী-দিদি সেটিং৷ তাঁদের যুক্তি আঁতাতের ফলে নারদা-সারদায় মমতাকে কখনও জেরার জন্য ডাকেনি সিবিআই৷ এমনকী তাঁএক ও তাঁর ভাইপো অভিষেককে জেলে ভরেনি মোদী সরকার৷ আজকে মোদীর অকপট কথন নিশ্চিতভাবে ভোটের মাঝখানে তাঁদের হাতে নয়া অস্ত্র তুলে দিল৷ সেটিং তত্ত্ব আরও জোড়ালো হল৷ এই নিয়ে অবশ্য মমতার বক্তব্য এখনো পর্যন্ত পাওয়া যায়নি৷ এমনকী এই নিয়ে কংগ্রেসও বামেদের বক্তব্যও এখনও পর্যন্ত নেই৷

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here