news bengali

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: দেশের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে রাজ্য ক্রমাগত বেড়ে চলেছে মারণ করোনাভাইরাস। এহেন পরিস্থিতির মাঝে দীর্ঘ লকডাউনে বেশ কিছু ছাড় ঘোষণা করে শুক্রবার সংবাদ মাধ্যমের মুখোমুখি হয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেখানেই ভিন রাজ্যের পরিযায়ী শ্রমিকদের ঘরে ফেরাতে কেন্দ্রের শ্রমিক স্পেশাল ট্রেন নিয়ে তোপ দেগে বসলেন মুখ্যমন্ত্রী। স্পষ্টভাবে জানিয়ে দিলেন, শ্রমিকরা ফিরুক। তবে ভিড়ে গাদাগাদি করে নয়। প্রয়োজনে ট্রেনের বগি বাড়ানো হোক। এবং যারা আসছে তাদের খাবার ও জলের পর্যাপ্ত ব্যবস্থা করা হোক।

এদিন সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয় মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘আমি মন থেকে চাই আমার শ্রমিক ভাই-বোনরা ফিরে আসুক। তার জন্যই আমরা ট্রেন চেয়েছি কেন্দ্রের থেকে। কিন্তু একটা সিটে কেন গাদাগাদি করে বসে আসবে। কেন তাদের জল খাওয়ার ব্যবস্থা করা হবে না। দরকার হলে বগি বাড়ান। রাজ্য সবকিছুর খরচ দিচ্ছে। অথচ যারা ৭২ ঘন্টা ট্রাভেল করে আসছে তাদের পানীয় জল টুকুও দেওয়া হচ্ছে না। গাদাগাদি করে আসার ফলে যাদের সংক্রমণ ছিল না তাদেরও সংক্রমণ হচ্ছে। এই বিষয়টা দেখে অবিলম্বে সরকারের নজর দেওয়া উচিত।’

এর পাশাপাশি রাজ্যে বাস চালু হওয়া প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘অনেক সময় বাসের কন্টাকটারকে বাধ্য করা হয় আমাকে নিতে হবে বলে। কিন্তু এমন করা যাবে না। তাহলে বাস চলবেই না। কুড়ি জনেরও বেশি যাত্রী নেওয়া যাবে না বাসে। গ্লাভস মাস্ক পড়তেই হবে। বাসে ওঠার আগে সানিটাইজ করতে হবে হাত। দরকার হলে বাড়ি থেকে কাগজ নিয়ে এসে বাসের সিটে বসতে হবে। সেই নির্দিষ্ট কাগজটি ডাস্টবিনে ফেলতে হবে। কন্ডাক্টর এর গায়ে হাত দেওয়া যাবে না। বাসে যেখানে সেখানে হাত দেবেন না।’

এর পাশাপাশি আগামী ১ তারিখ থেকে রাজ্যের সমস্ত মন্দির, মসজিদ, গুরুদুয়ার খুলে দেওয়ার ঘোষণা করে দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। যদিও সেখানে নিয়ম-কানুন বেঁধে দিয়ে বলা হয়েছে ১০ জনের বেশি প্রবেশ করা যাবে না ১৫ জন এক সঙ্গে এক জায়গায় জড়ো হওয়া যাবে না। এছাড়াও, ১ জুন থেকে চা, জুটমিল ১০০ শতাংশ কর্মী নিয়ে কাজ শুরু করার অনুমতি দেন তিনি। এবং ৮ জুন থেকে ১০০ শতাংশ কর্মী নিয়ে সমস্ত সরকারি বেসরকারি সংস্থায় কাজ শুরু হবে বলেও জানান তিনি।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here