kolkata bengali news

মহানগর ওয়েবডেস্ক: ছেলেধরা সন্দেহে গণপিটুনির ঘটনা বেড়েই চলেছে। অচেনা ব্যক্তিকে এলাকায় ঘোরাঘুরি করতে দেখলেই ছেলেধরা সন্দেহে চলছে গণপ্রহার। তবে এবার এলাকায় ঘোরাঘুরি করার জন্য নয়, নিজের ছেলেকে সঙ্গে নিয়ে বেরিয়েই ছেলেধরার তকমা পেলেন পিন্টুলাল বর্মন। শুধু তকমা পাওয়া নয়, গণপিটুনিরও শিকার হয়েছেন। ভয়ঙ্কর এই ঘটনাটি ঘটেছে পশ্চিমবঙ্গের প্রতিবেশী রাজ্য ঝাড়খণ্ডে।

জানা গিয়েছে, পিন্টুলাল বর্মন ঝাড়খণ্ডের জামতারা জেলার গেদিয়া গ্রামের বাসিন্দা। বৃহস্পতিবার তিনি তাঁর ৬ বছর ও ১০ বছর বয়সী দুই ছেলেকে সঙ্গে নিয়ে দাদার বাড়ি ধানবাদে যাওয়ার উদ্দেশ্যে বেরিয়েছিলেন। জামতারা শহরের বাসস্ট্যান্ডে দাঁড়িয়ে থাকার সময় ছোট ছেলের বায়না থামানোর জন্য তাকে এক থাপ্পড় কষিয়েছিলেন পিন্টুলাল। আর তারই খেসারত হিসাবে গণপিটুনির শিকার হলেন তিনি। ছেলেধরা ভেবেই পিন্টুলালকে গণপিটুনি দিতে শুরু করে এলাকাবাসী। তবে জামতারা থানার পুলিশ যথাসময়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছে যাওয়ায় প্রাণে বেঁচে গিয়েছেন পিন্টুলাল।

ছেলেকে থাপ্পড় মারার ব্যাপারে পিন্টুলাল পুলিশকে জানিয়েছেন, গত কয়েকদিন ধরে তাঁর স্ত্রী অসুস্থ। সেজন্য তিনি তাঁর দুই ছেলেকে দাদার বাড়ি রেখে আসতে যাচ্ছিলেন। জামতারা শহরের বাসস্ট্যান্ডে দাঁড়িয়ে থাকার সময় তাঁর ছোট ছেলে স্ন্যাক্স খাওয়ার বায়না করে। পিন্টুলালবাবু ছেলেকে খাবারটি কিনে না দেওয়ায় সে চিত্কার করে কাঁদতে শুরু করে। তখনই পিন্টুলাল বিরক্ত হয়ে ছেলেকে কষিয়ে থাপ্পড় মারেন। আর এই ঘটনাতেই বাসস্ট্যান্ডে দাঁড়িয়ে থাকা লোকেরা পিন্টুলালকে ছেলেধরা ভেবে বসে এবং তাঁকে ঘিরে ধরে গণপিটুনি দিতে শুরু করে। তবে প্রত্যক্ষদর্শীদের মধ্যে কেউ জামতারা থানায় খবর দিয়েছিলেন। সেই খবর পেয়েই জামতারা থানার পুলিশ তড়িঘড়ি ঘটনাস্থসে গিয়ে পিন্টুলালকে উদ্ধার করে। জামতারা থানার পুলিশ আধিকারিক মনোজ কুমার জানিয়েছেন, ‘সঠিক সময়ে আমরা ঘটনাস্থলে পৌঁছে যাওয়ায় ওই ব্যক্তি সেভাবে আক্রান্ত হয়নি। তাঁকে সুস্থভাবে উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে।’ পিন্টুলালের সঙ্গে থাকা ওই দুই বালকও তাঁকে বাবা বলে স্বীকার করেছে বলে জানিয়েছেন মনোজ কুমার।

উল্লেখ্য, ইদানীংকালে ঝাড়খণ্ডে এই নিয়ে চারটি গণপিটুনির ঘটনা ঘটল। প্রথম ঘটনাটি ঘটেছিল গিরিডি জেলার খারসান পঞ্চায়েত এলাকায়। সেখানে গণপিটুনির শিকার হয়েছেন এক বিএসএনএল কর্মী। তার কয়েকদিন পর হাজারিবাগের গিড্ডিতে গণপিটুনির শিকার হন এক যুবক। তারপর আবার রামগড় জেলার মারার গ্রামে এক যুবক গণপিটুনির শিকার হয়। সেই ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতে এবার একই ঘটনা ঘটল জামতারা শহরে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here