kolkata news
Highlights

  • পণের দাবিতে এক গৃহবধূকে খুনের অভিযোগ উঠল স্বামী-সহ পরিবারের লোকজনের বিরুদ্ধে
  •  অভিযোগ, বিয়ের এক মাস পর থেকে ওই বধূর ওপর অত্যাচার শুরু করে শ্বশুরবাড়ির লোকজন
  • বাপের বাড়ির লোকজনের দাবি, পণের দাবিতে খুন করে ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে


নিজস্ব প্রতিনিধি, মালদা:
পণের দাবিতে এক গৃহবধূকে খুনের অভিযোগ উঠল স্বামী-সহ পরিবারের লোকজনের বিরুদ্ধে। মৃতদেহটিকে ময়না তদন্তে পাঠিয়ে ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ। ঘটনাটি ঘটেছে মালদার কালিয়াচক থানার সিলামপুর এলাকায়।

মৃত বধূর নাম জাহানারা বিবি (২১)। বাড়ি কালিয়াচক থানার আলিনগর গ্রাম পঞ্চায়েতের নুরনগর গ্রামে। জাহানারা অচিনটোলা হাই মাদ্রাসার দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্রী ছিলেন। জানা গেছে, সিলামপুর তালতলা এলাকার বাসিন্দা আজাদ শেখের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক ছিল জাহানারার। আট মাস আগে তারা বিয়ে করেন। অভিযোগ, বিয়ের এক মাস পর থেকে জাহানারার ওপর অত্যাচার শুরু করে শ্বশুরবাড়ির লোকজন। বাবার বাড়ি থেকে জাহানারাকে ২ লক্ষ টাকা নিয়ে আসতে বলে শ্বশুরবাড়ির লোকজন। আজ সকালে জাহানারার ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার হয়। জাহানারার বাপের বাড়ির লোকজনের দাবি, পণের দাবিতে খুন করে ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে জাহানারাকে। ঘটনার খবর মেয়ে মৃতদেহটিকে উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য মালদা মেডিক্যালে পাঠিয়েছে কালিয়াচক থানার পুলিশ।

জাহানারার মা সাবেদা বিবি জানান, আট মাস আগে আজাদ মেয়েকে নিয়ে পালিয়ে যায়। কয়েকদিন পরে সকলে বিয়ে মেনে নিলে মেয়ের শ্বশুরবাড়ির লোকজন পণ দাবি করে। সেই সময় নগদ ৪৬ হাজার টাকা, দেড় ভরি সোনার হার দেওয়া হয়েছিল। এরপরেও মেয়ের শ্বশুরবাড়ির লোকজন ২ লক্ষ টাকা দাবি করে। সেই টাকা না পেয়ে গতকাল রাতে মেয়েকে হত্যা করে গলায় ফাঁস লাগিয়ে ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে।

কালিয়াচক থানার পুলিশ জানিয়েছে, মৃতদেহটিকে ময়না তদন্তের জন্য মালদা মেডিক্যালে পাঠানো হয়েছে। ময়না তদন্তের রিপোর্ট পেলেই মৃত্যুর সঠিক কারণ জানা যাবে। অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ। এই ঘটনায় পুলিশ এখনও কাউকে গ্রেফতার করেনি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here